বিশেষ প্রতিনিধি : পিরোজপুর জেলার মঠবাড়িয়ায় ইউপি নির্বাচনের প্রচারণায় আ‘লীগ চেয়ারম্যান প্রার্থীর কর্মী যুবলীগ নেতা মিজানুর রহমান বিপ্লব (৪০) কে কুপিয়ে হত্যা চেষ্টার মামলায় ফরিদ হোসেন (২৬) নামে এক জনকে গ্রেপ্তার করেছে মঠবাড়িয়া থানা পুলিশ। শুক্রবার (২৯ জুলাই) রাতে অভিযান চালিয়ে উপজেলার আলগী বাজার এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করা হয়। গ্রেপ্তারকৃত ফরিদ হোসেন আলগী গ্রামের মো. ফারুক আকনের ছেলে। এর আগে এ ঘটনায় ফয়সাল ওরফে জুতা ফয়সাল ও খোকন ফরাজি নামে আরও দুজনকে গ্রেপ্তার করেছে থানা পুলিশ।জানা গেছে, গত ২২ ডিসেম্বর‘২১ বুধবার সন্ধার পরে যুবলীগ নেতা বিপ্লব ধানীসাফা ইউপি নির্বাচনে আ’লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী হারুন অর রশিদ তালুকদারের নৌকা মার্কার স্টীকার নিয়ে স্থানীয় আলগী বাজারে দলীয় কার্যালয়ের উদ্দেশ্যে রওনা দেন। রাত সাড়ে নয়টার দিকে একদল সন্ত্রাসী আলগী বাজার সংলগ্ন মসজিদের সামনে বিপ্লব বেপারীর ওপর হামলা করে। এতে তার বাম হাতের কব্জি এবং ডান হাতের একটি আঙ্গুল প্রায় বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। এছাড়া মাথা, পিঠ ও দুই হাতে ধারালো অস্ত্র দিয়ে এলোপাথারী কুপিয়ে ফেলে রাখে যায়। এসময় আরও ২ জন আহত এবং ৩টি মোটর সাইকেল ভাংচুরের ঘটনা ঘটে। স্থানীয় লোকজন আতংকে তাকে উদ্ধার করতে এগিয়ে আসেনি। খবর পেয়ে মঠবাড়িয়া থানা পুলিশ ঘটনাস্থল হতে তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যান। কর্তব্যরত চিকিৎসক ওই রাতেই বিপ্লবকে উন্নত চিকিৎসার জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করেন। বিপ্লব বেপারী সাফা গ্রামের নূর উদ্দিন বেপারীর ছেলে। তিনি ধানীসাফা ইউনিয়ন যুবলীগের সহ-সভাপতি। বিপ্লবের বড় ভাই বাচ্চু বেপারী ওই ইউনিয়ন আ‘লীগ সভাপতি।এ ঘটনায় আহত বিপ্লবের অপর ভাই মিল্টন বেপারী বাদি হয়ে নামীয় ৩২ জন ও অজ্ঞাত ১৫ জনের বিরুদ্ধে ২২ ডিসেম্বর‘২১ বুধবার রাতেই মঠবাড়িয়া থনায় একটি হত্যাচেষ্টার অভিযোগে মামলা দায়ের করেন।মঠবাড়িয়া থানার ওসি মুহা নূরুল ইসলাম বাদল বলেন, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে আসামী ফরিদ হোসেনকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাকে শনিবার (৩০ জুলাই) দুপুরে আদালতে সোপর্দ করা হয়েছে।