সুন্দরগঞ্জে সহকর্মীর শ্লীলতাহাণি

প্রকাশিত: ০২-১১-২০২১, সময়: ১৪:২৬ |
Share This

আবু বক্কর সিদ্দিক, সুন্দরগঞ্জ (গাইবান্ধা) প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জ উপজেলার বেলকা ইউনিয়নে কর্মরত পরিবার পরিকল্পন পরিদর্শক (এফপিআই) রফিকুল ইসলাম কর্তৃক পরিকল্পিতভাবে এক নারী সহকর্মীকে একটি ফাঁকা বাড়িতে নিয়ে চরমভাবে শ্লীলতাহাণি ঘটিয়েছে মর্মে অভিযোগ রয়েছে। জানা যায়, সোমবার বেলকা বাজারস্থ ইউনিয়ন স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কল্যাণ কেন্দ্রে এমন অভিযোগের প্রেক্ষিতে তদন্ত করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা ও উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডা: সেকেন্দার আলী। সম্প্রতি নদীর চরে একটি ফাঁকা বাড়িতে পরিকল্পিতভাবে সুযোগ করে নিয়ে ঐ নারী সহকার্মীর মারত্বকভাবে শ্লীলতাহাণি ঘটায় উক্ত এফপিআই রফিকুল ইসলাম। এর সু-বিচার চেয়ে সংশ্লিষ্ট দপ্তরে অভিযোগ করেন ঐ নারী সহকর্মী। এরপর এফপিআই রফিকুল ও তার দলবল ঐ অভিযোগকারী পরিবারের উপর কঠোর হুকমী-ধামকী প্রদান অব্যহত রাখেন। কোথাও মুখ না খুলে অভিযোগ প্রত্যাহারের জন্য চাপ সৃষ্টি করছে বলে স্থানীয়রা জানান। সংশ্লিষ্ট বাস্তবায়িত একটি প্রকল্পের অধীনে চরাঞ্চলে কর্মরত ঐ নারী সহকর্মী। একাধিক সূত্র জানায়, রফিকুল ইসলাম ইতোপূর্বেও এক মেয়ের প্রতি লোলুভ দৃষ্টি দেয়ায় স্থানীয়বাবে বিচারে মুখোমুখি হন। এ ব্যাপারে মোবাইল ফোনে কথা হলে ঐ নারী সহকর্মীর স্বামী ভয়ে মূখ খুলতে নারাজ হন। এফপিআই রফিকুল ইসলাম বলেন, বিষয়টি বিভাগীয় পর্যায়ে সমাধান হয়েছে। অপর প্রশ্নের জবাবে তিনি আরও বলেন, অভিযোগকারিনী তার অধীনে চাকরী করে। বাধ্য হয়ে অভিযোগ প্রত্যাহার করেছে। আর কোন সমস্যা নেই। উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা দপ্তরের একাধিক সূত্র জানায়, ঘটনার পর থেকে এফপিআই রফিকুলকে কোনভাইবে পাওয়া যায়নি। এমনকি, কর্তব্যে অনুপস্থিত ছিল। উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ভারপ্রাপ্ত) ডা: সেকেন্দার আলী জানান, ভিকটিমের অভিযোগ উপ-পরিচালক মহোদয়কে প্রেরণ করার পর তিনি বিষয়টি তদন্ত করে প্রতিবেদন দাখিলের নির্দেশ দেয়ায় সোমবার সকাল থেকে তদন্ত কাজ চলছে। অভিযোগের সত্যতা মেলায় সে বিষয়ে যথাযথভাবে প্রতিবেদন দাখিল করা হবে।

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে