অবৈধ পথে আসা ভারতীয় গরুতে সয়লাব তেঁতুলিয়ার দুই ইউনিয়ন

প্রকাশিত: ০৩-০৯-২০২১, সময়: ০৮:১৯ |
Share This

পঞ্চগড় প্রতিনিধিঃ পঞ্চগড় জেলাধীন তেঁতুলিয়া উপজেলায় অবৈধ পথে আসা ভারতীয় গরুতে সয়লাব হয়েছে দুই ইউনিয়ন। বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর ২০২১) উপজেলার সীমান্তঘেষা ৬নং ভজনপুর ইউপি’র ভুতিপুকুর, বগুলাহাটি, কির্তনপাড়া, সংগঠন, মুর্খাজোত, শান্তিনগর ও ভদ্রেশ্বর এবং ৭নং দেবনগড় ইউপি’র শুকানী, শিবচন্ডি ও নন্দগছ এলাকা দিয়ে বিপুল পরিমান চোরাই গরু বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে।
সরেজমিনে গিয়ে জানতে পারা যায়, ভারতীয় তারকাটা পেরিয়ে এসব অবৈধ গরু নিয়ে আসছেন ভুতিপুকুর এলাকার জমির উদ্দিনের ছেলে তসলিম, রজব আলীর ছেলে মোজাম্মেল, খোরশেদ আলীর ছেলে বিলপুট, ইয়াকুব আলীর ছেলে রবিউল ওরফে সপিত, খতিব উদ্দিনের ছেলে শাহাদাত, নুরুদ্দিনের ছেলে মুক্তার আলী, নেজামদ্দিনের ছেলে মালেকসহ আরো অনেকে এবং হারাদিঘী গ্রামের নামিদামী চোরাকারবারি মৃত আবিরুলের ছেলে তরিকুল ইসলাম, সংগঠন এলাকার ডাক নামীয় বাঙ্গালীর ছেলে তাজিরুল, হবি মোহাম্মদের ছেলে আনিছুর, জসিম উদ্দিনের ছেলে আনারুল, কাসিম উদ্দিনের ছেলে শওকত, মোহাম্মদের ছেলে রশিদ, আফাস ও হামিদুলসহ আরো অনেকে রয়েছেন, শান্তিনগর এলাকার জমির উদ্দিনের ছেলে মাসুম, ফারুক, জামাল, কির্তনপাড়া এলাকার সুপি চোরের ছেলে, বগুলা হাটি এলাকার দিলীপের ছেলে মোমিরুল, আমজুয়ানী এলাকার ফয়জুলের ছেলে আইবুল, ফজল আলীর ছেলে সবুজ, ভজনপুর নিজবাড়ি এলাকার মৃত নুর ইসলামের ছেলে শাহজাহান আলী, ভজনপুর সর্দারপাড়া এলাকার ইসলাম উদ্দিনের ছেলে আওয়াল হোসেন, ভজনপুর ডাঙ্গাপাড়া এলাকার মৃত ফয়জুল ইসলাম ফেকুর ছেলে সফিকুল আলম, দেবনগড় ইউপির নন্দগছ এলাকার রহমান আলীর ছেলে নুর ইসলাম, নজবদ্দিনের ছেলে ফজল, শিবচন্ডি এলাকার বাচ্চুর ছেলে জুলফিকার, মকবুলের ছেলে সামাদ, মৃত আসাদুলের ছেলে পলাশ, গোলাবদিগছ এলাকার কাশিম, জয়গুনজোত এলাকার পিয়ার আলী ওরফে ডাফার ছেলে আইবুল, তিরনইহাট ইউপির রনচন্ডি এলাকার জামাল, দোগরবাড়ি এলাকার রফিকুল ইসলাম কাবুলের ছেলে ববিউল, খয়খাট পাড়া এলাকার আবু বক্কর, বাংলাবান্ধা ইউপির ধায়জান ডাঙ্গাপাড়া এলাকার জুমার উদ্দিনের ছেলে নুরজামাল, বাইনগছ এলাকার শরীফ উদ্দিনের ছেলে নুর ইসলাম, তেঁতুলিয়া ইউপির তেঁতুলিয়া বাজারের রাজুসহ ইহা ছাড়াও উপজেলায় আরোও অনেক চোরাকারবারি রয়েছেন।
জানা যায়, চোরাকারবারির লাইনম্যান হচ্ছেন উপজেলার ভজনপুর ইউপির বগুলাহাটি গ্রামের আতারুল ওরফে নাতুর ছেলে আবুল হোসেন এবং ভুতিপুকুর গ্রামের আইজুল ওরফে কালামিয়া। এই লাইনম্যান সার্বক্ষণিক সকল বিপদাপদে চোরাকারবারিদের পিছনে সহযোগিতা করছেন। তারা বর্ডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) কে তাদের হাতের মুঠোয় করে নিয়েছেন। এতে আরোও জানা যায়, চোরাকারবারিদের এই লাইনম্যান স্থানীয় মাতব্বর, হাইওয়ে পুলিশসহ অনেককেই ম্যানেজ করেই ভারতীয় গরু পারাপারের এই অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছেন।
শুধু তাই নয়, গতকাল (১ সেপ্টেম্বর) উপজেলার শালবাহান হাট ঘুরে এ তথ্য জানা যায় যে, ভারতীয় গরু গুলো পারমিট নেয়ার জন্যই বাজারে উঠানো হয়।
বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) সকালে ভুতিপুকুর থেকে এক সংবাদের ভিত্তিতে গরু পারাপারের খবর জানতে পারা গেলে তরিঘড়ি বাসা থেকে বের হয়ে উপজেলার বুড়াবুড়ি ইউপির নাওয়াপাড়া থেকে বুড়াবুড়ি আসতে বুড়াবুড়ি করাত মিল এবং ইউপি সদস্য কাদেরের বাসার সামনে অবৈধ পথে আসা ভারতীয় দুই পিকআপ গরু আটকিয়ে রাখলে আমি সংবাদকর্মী অটো থেকে নেমেই ছবি তুলতে না তুলতেই ইউপি মহিলা সদস্য নুর নিহার, ইউপি সদস্য কাদের ও ইউপি সদস্য ইয়াছিন আলী এবং যুবলীগ নেতা বাদশা সুলায়মান ও সাবেক ইউপি আওয়ামীলীগ সভাপতি মকছেদ আলী আটকানো ভারতীয় গরুতে বোঝাই পিকআপ দুটি ছাড়িয়ে দেয়। পরে তৎক্ষণাত মকছেদ আলী বলেন, কোনো টাকা নেয়া হয়নি। এমনিতেই ছাড়িয়ে দিয়েছেন।
ইউপি মহিলা সদস্য নুর নিহার বলেন, গরু ছাড়ানোর বিষয়ে তারা কোনো টাকা নেয়নি। বিষয়টি তিনি এড়িয়ে যান।
অপরদিকে ইউপি সদস্য আব্দুল কাদের বলেন, তিনি হাজী মানুষ টাকা নেয়ার বিষয়ে কোনো দফরফা হয়নি। তিনিও বিষয়টি এড়িয়ে দেন। এ বিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান অবগত আছেন কিনা প্রশ্নত্তোরে বলেন, চেয়ানম্যানকে বিষয়টি অবগত করেননি।
এ ব্যাপারে বুড়াবুড়ি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ তারেক হোসেন বলেন, তিনি এ বিষয়ে কোনো কিছুই জানেন না। তিনি তার অপারেশনকৃত সহধর্মিনীকে নিয়ে কয়েকদিন ধরে খুবই চিন্তিত আছেন। চেয়ারম্যান আরোও বলেন, আটকানো গরুর বিষয়ে কোনো সদস্যই তাকে অবগত করেননি।ওই সময়ে তেঁতুলিয়া মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আবু ছায়েম মিয়াকে ভারতীয় চোরাকারবারি গরু বুড়াবুড়ি হয়ে ছেড়ে যাচ্ছে বলা হইলে তিনি ফোর্স পাঠিয়ে দিবেন আশ্বাস দেন।
এ বিষয়ে পঞ্চগড় জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ জহুরুল ইসলাম বলেন- অবগত হলাম, চোরাকারবারিদের বিরুদ্ধে দ্রæত প্রদক্ষেপ নেয়া হবে।
এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ ইউসুফ আলীকে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি মিটিং এ আছেন ফিরতি এসএমএস পাঠান পরে রিপোর্ট লেখার শেষ মুহুর্তে আবারও কথা বলার চেষ্টা করা হলে মুঠোফোনের কলটি রিসিভ হয়নি।

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে