মঠবাড়িয়ায় জাপা নেতাকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ

প্রকাশিত: ২৯-০৮-২০২১, সময়: ১৮:৫৫ |
Share This

মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি : পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় বলেশ^র নদের জেলেদের কাছ থেকে অবৈধভাবে চাঁদা আদায়ের প্রতিবাদ করায় মিথ্যা মামলায় হয়রানীর শিকার হচ্ছেন শফিকুল ইসলাম নামে এক জাপা নেতা। রোববার দুপুরে মঠবাড়িয়া প্রেসক্লাবে মিথ্যা মামলা ও হয়রানী থেকে বাঁচতে সংবাদ সম্মেলন করেন তিনি। শফিকুল ইসলাম উপজেলার তুষখালী গ্রামের আইউব আলী সিকদারের ছেলে ও উপজেলা জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক সম্পাদক।
লিখিত বক্তব্যে তিনি বলেন, হত্যাচেষ্টা, চাঁদাবাজিসহ একাধিক মামলার আসামী সদ্য বিএনপি থেকে আ‘লীগে যোগদান করা ছগীর (সাবেক মেম্বর) ও ইউপি চেয়ারম্যান শাহজাহান হাওলাদার এবং মঠবড়িয়া থানার ওসি মুহা. নূরুল ইসলাম বাদল যোগসাজসে পুলিশ দিয়ে গত ২১ জুলাই সন্ধ্যায় তুষখালী থেকে তাকে থানায় তুলে আনে। এ সময় শফিকুল ওসির কাছে থানায় আনার কারন জানতে চাইলে ওসি বহু অভিযোগ রয়েছে বলে তার কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবী করেন। পরে সে ১৫ হাজার টাকা এনে ওসি ও দারোগা পলাশকে ভাগ করে দেয়। কিছুক্ষণ পরে ছগীর (সাবেক মেম্বর) ও চেয়ারম্যানের ছেলে শামীম হাওলাদার ওসির রুমে প্রবেশ করে। এসময় ওসি শফিকুলকে ছগীর হোসেন ও চেয়ারম্যানের কথামতো চলার নির্দেশ দেন। শফিকুল প্রতিবাদ করলে ওসি ও এসআই পলাশ সামনে ছগীর (সাবেক মেম্বর) শফিকুলকে মারধর করে। পরে একটি মিথ্যা মামলা দিয়ে গ্রেপ্তার করে পরের দিন আদালতে সোপর্দ করে। টানা ২০ দিন কারা ভোগের পর জামিনে বেড়িয়ে তিনি গত ২৫ আগষ্ট বরিশাল প্রেসক্লাবে ওসি, ইউপি চেয়ারম্যান ও সাবেক মেম্বরের বিরুদ্ধে সংবাদ সম্মেলন করেন এবং বিভিন্ন দপ্ততে তাদের বিরুদ্ধে লিখিত অভিযোগ করে। এতে তারা ক্ষিপ্ত হয়ে দেশের বিভিন্ন থানায় মিথ্যা মামলায় জড়ানোর হুমকি দেয় বলে তিনি সংবাদ সম্মেলনে জানান। তিনি এসকল মিথ্যা ও হয়রানী মূলক মামলা থেকে বাঁচতে প্রশাসনসহ উর্দ্ধতণ কর্মকর্তাদের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
মঠবড়িয়া থানার ওসি মুহা. নূরুল ইসলাম বাদল, ঘুষ গ্রহণ ও মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানীর অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, একটি মারামারির মামলায় শফিকুলকে গ্রেপ্তার করা হয়ে ছিলো।

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে