ভান্ডারিয়ায় করোনা কালিন প্রনোদনায় অনিয়মে মাঠ কর্মী সাময়ীক বরখাস্ত

প্রকাশিত: ২৪-০৮-২০২১, সময়: ১৪:৪০ |
Share This

ভান্ডারিয়া প্রতিনিধি : পিরোজপুরের ভান্ডারিয়ায় করোনা কালিন সময়ে বিশ্ব ব্যাংকের অর্থায়ণে এবং প্রাণিসম্পদ অধিদপ্তর কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন প্রাণিসম্পদ ও ডেইরী উন্নয়ন প্রকল্পের(এলডিডিপি)জরুরী কর্মপরিকল্পনার আওতায় উপজেলার সুফলভোগী নির্বাচনের পদক্ষেপ নেয়ার জন্য জারিকৃত এক নির্দেশনা প্রেরণ করা হয়।
২০২০সালের ৩০আগষ্ট প্রকল্প পরিচালক (যুগ্ম সচিব) মোঃ আব্দুর রহিম স্বাক্ষরিত নির্দেশনাপত্রে বরিশাল, বরগুনা, পটুয়াখালী, ভোলা, ঝালকাঠী এবং পিরোজপুর জেলা এলাকা রয়েছে। এ কর্মপরিক্লনায় উল্ল্যেখ করা হয় প্রকল্প এলাকার ৬১ জেলার ৪৬৬টি উপজেলা থেকে ডেইরী (২-৫)গাভী ,(৬ ৯) গাভী, (১০Ñ২০)গাভী,সোনালী মুরগী (১০০Ñ৫০০),(৫০১-১০০০), (১০০০+মুরগী) ব্রয়লার (৫০০-১০০০),(১০০১-২০০০), লেয়ার (২০০Ñ৫০০মুরগী, (৫০১Ñ১০০০), (১০০০+মুরগী) হাঁস (১০০Ñ৩০০), (৩০১-৫০০)এবং (৫০০+হাঁস) এ ১৫টি ক্যাটাগরী ও সাব ক্যাটাগরী ৪লাখ,৭হাজার ৪০২জন খামারির নাম সুপারিশ করা হয়। লক্ষ্যমাত্রার অবশিষ্ট খামারিদের পর্যায়ক্রমে পরবর্তী ধাপে বিবেচনা করা হবে বলেও উল্ল্যেখ রয়েছে।
ঐ পরিপত্রের আলোকে পিরোজপুরের ভা-ারিয়া উপজেলায় ১৫টি ক্যাটাগরীতে ৫১১জনের তালিকা প্রস্তুুত করার কথা থাকলেও ৫০৬জনের তালিকা পত্রে উল্লেখিত নির্ধারিত ওই বছরের ১৩ই সেপ্টেম্বরের মধ্যে সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরণ করা হয়। মাঠ পর্যায়ে তালিকা প্রস্তুুতে এল,এফ,ও(লাইভস্টক সম্প্রসারন কর্মকর্তা)এল.এফ.ও (লাইভস্টক ফিল্ড এ্যাসিস্ট্যান্ট দুই জন এবং এল,এস, পি(লাইভস্টক সার্ভিস প্রভাইটর)পাঁচ জন সহ মোট আট জনের একটি টিম ভা-ারিয়া পৌরসভা সহ উপজেলার বাকি ছয়টি ইউনিয়ন থেকে তালিকা গ্রহন সংগ্রহ করেন। পরে ঐ তালিকা যাচাই বাছাই করার জন্য পাঁচ সদস্য বিশিষ্ট উপজেলা যাচাই বাছাই কমিটির সভাপতি উপজেলা নির্বাহী অফিসার,সদস্য সচিব উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা,উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা ও উপজেলা যুবউন্নয়ন কর্মকর্তাগণ যাচাই বাছাই শেষে প্রকল্পের নিয়মানুযায়ী সুফলভোগীর নাম,ভোটার আইডিকার্ড,ঠিকানা, মোবাইল নম্বর বিকাশ নম্বরসহ সংশ্লিস্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরণ করেন। পরে সুফলভোগীদের স্ব স্ব বিকাশ নন্বরে প্রকল্পের ১৫টি ক্যাটাগরী অনুযায়ী সহায়তা পেয়ে থাকেন।
যখন বিষয়টি জানাজানি হয় তখন সুবিধা বঞ্চিচরা সংশ্লিষ্ট ইউনিয়ন চেয়ারম্যানদের সাথে আলাপ করলে তাদের প্রাণিসম্পদ দপ্তরে যোগাযোগের জন্য বলেন চেয়ারম্যান। তখন আবেদনকারীরা উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয় থেকে ৫০৬জন সুফলভোগীর তালিকা থেকে ৮৫জনের হাঁস,মুরগীর খামার বা ডেইরী খামার নাই উল্ল্যেখ করে অভিযোগ এনে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার কাছে লিখিত অভিযোগ দাখিল করেন ভিটাবাড়িয়া ইউনিয়নের আবু হানিফ হাওলাদার। অভিযোগে উল্ল্যেখ করা হয় ঐ অফিসের ফিল্ড এ্যাসিস্টান্ট শিবলী রুবায়েত লিয়ন নিজের প্রভাব খাটিয়ে নিজ বাড়ি এবং তার স্বজনসহ নিয়নবর্হীভূত প্রকার ভেদে ১৫জনের নাম তালিকা ভূক্ত করেন এবং তারা সুবিধাও ভোগ করেন।
পরে ঐ আবেদনের প্রেক্ষিতে এবং উপজেলা চেয়ারম্যানের মৌখিক আদেশে বিষয়টি তদন্ত করার জন্য উপজেলা ভ্যাটেনারী সার্জন ডাঃ সোমা সরকার ও লাইভস্টক ফিল্ড অফিসার সহ মোট তিন সদস্যের একটি কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটি মাঠ পর্যায়ে চিহ্নিত বাড়ি বাড়ি ঘুরে অভিযোগের আংশিক সত্যতা পায়। আবেদনকারীরা যে ৮৫জন সুবিধা বঞ্চিতদের নাম চিহ্নিত করে দিয়েছে তাদের মধ্যে ৯জন এ সুবিধা থেকে বঞ্চিত হয় বলে তদন্ত রিপোর্টে উল্ল্যেখ করা হয়। আর ৯জনই শিবলী রুবায়েত লিয়নের বাড়ির লোক এবং স্বজন। তদন্ত শেষে চলতি বছরের ২৫মে তদন্ত রিপোর্ট ভারপ্রাপ্ত প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা উপজেলা ভ্যাটানারী সার্জন ডাঃ সোমা সরকার উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরণ করেন।
এদিকে গতকাল মঙ্গলবার এ বিষয়ে খোঁজখবর নিয়ে জানা যায়,আবেদনকারীদের মধ্যে ৫নম্বর আবেদনকারী মো. আনোয়ার হোসেনের বাড়ি মঠবাড়িয়া উপজেলার সাফা ইউনিয়নে। বাকিদের অধিকাংশ তেলিখালী এবং অন্যরা ইকড়ি,ভিটাবাড়িয়া ,নদমুলা এবং কিছু আছে ভা-ারিয়া সদর,গৌরীপুর,ধাওয়া ইউনিয়নের। লাইভস্টক মাঠ সহকারী শিবলী রুবায়েত লিয়নের কারনে এ ধরনের অনাকাঙ্খিত ঘটনা ঘটে।
এবিষয়ে উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা সঞ্জীব কুমার বিশ্বাস জানান,এ তালিকা প্রস্তুুতের সময় আমি ছিলম না । আমি এ উপজেলায় অল্প কয়েক মাস হয় জয়েন্ট করেছি। তবে এ বিষয়ে একটি অভিযোগ আমার সময়ে পাওয়ার পরে তিন সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। তদন্ত কমিটির রিপোর্টে ঘটনার আংশিক সত্যতা পাওয়া যায়। এবং ওই তদন্ত প্রতিবেদন ইতো মধ্যে সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরন করা হয়েছে।
এবিষয়ে ভা-ারিয়া উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও পৌর প্রশাসক সীমা রানী ধর জানান,যদিও আমি এখানে নতুন জয়েন্ট করেছি তবুও চলতি মাসের প্রথম দিকে উপজেলা মাসিক সমন্বয় সভার সভাপতি উপজেলা চেয়ারম্যান মো.মিরাজুল ইসলাম মিরাজ বিষয়টি সভায় উত্থাপণ করলে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করে প্রতিবেদন দেয়ার সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ইতো মধ্যে তদন্ত কমিটি বিষয়টির আংশিক সত্যতা নিশ্চিত করে প্রতিবেদন সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের নিকট প্রেরন করা হয়েছে। ঐ রিপোর্ট অনুযায়ী ঘটনায় সম্পৃক্তদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় ব্যাবস্থ্যা গ্রহন করা হয়েছে বলে শুনতে পেয়েছি।
এ বিষয়ে ঐ সময়ে পিরোজপুর প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার দ্বায়িত্বে থাকা মো.আমজাদ হোসেন ভূইঞা এর নিকট জানতে চাইলে তিনি মুঠো ফোনে জানান,যদিও আমি এখন কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে কর্মরত আছি। তবে ঐ বিষয়টি তৎসময়ে ভা-ারিয়া উপজেলা কার্যালয়ে দ্বায়িত্বপ্রাপ্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাগণ আমাকে লিখিত ভাবে জানিয়েছে। তিনি আরো জানান,উপজেলা কার্যালয় থেকে প্রেরিত তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পরে ঘটনায় জড়িত লাইভস্টক ফিল্ড এ্যাসিস্টান্ট শিবলী রুবায়েত লিয়নকে সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষ চাকুরী থেকে বরখাস্ত করেছেন।
অন্যদিকে অভিযোগ রয়েছে সদ্য বরখাস্তকৃত শিবলী রুবায়েত লিয়ন উপজেলা প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে অভিযোগের বিষয়ে আবেদনকারীদের নানা ভাবে হয়রানী করছে বলেও নাম প্রকাশ না করার সর্তে জানান,আবেদনকারীদের মধ্যে ভিটাবাড়িয়ার প্রণোদনার সুফল না পাওয়া বাসিন্দারা। এবিষয়ে প্রাণিসম্পদ কার্যালয়ে অভিযোগ পত্র দাখিলের ১০নম্বর ব্যাক্তি ভিটাবাড়িয়া ইউনিয়নের বাসিন্দা আঃ আলিম হাওলাদার বাদি হয়ে শিবলী রুবায়েত লিয়ন সহ ৭জনের বিরুদ্ধে ভা-ারিয়া থানায় একটি অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন । গতকাল মুঠোফেনে আঃ আলিম হাওলাদার ছেলে জানান, শিবলী রুবায়েত লিয়ন কে শুধু চাকুরী থেকে অব্যাহতি দিলেই হবেনা। সে যে সরকারি দুই কোটি টাকা আত্মসাৎ করেছে তা উদ্ধার করে সুফলভোগীদের মাঝে বন্টনসহ দৃষ্টান্তমূলক সাস্তির দাবিও জানান।

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে