মঠবাড়িয়ায় রাস্তা থাকলেও ভুয়া স্কীম তৈরী করে টাকা আত্মসাতের পায়তারার অভিযোগ

প্রকাশিত: ২৬-০৪-২০২১, সময়: ১৭:০১ |
Share This

বিশেষ প্রতিনিধি : ২০২০-২১ অর্থ বছরে কাজের বিনিময় টাকা (কাবিটা) প্রকল্পের আওতায় পিরোজপুরের মঠবাড়িয়া উপজেলার ১ নং তুষখালী ইউনিয়নের একাধিক প্রকল্প তৈরী করা উন্নয়ন কমিটির বিরুদ্ধে ভুয়া প্রকল্প (স্কীম) তৈরী করে টাকা আত্মসাৎ করার পায়তারার অভিযোগ উঠেছে।
সরকারি হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাপতি ও স্থানীয় সংসদ সদস্য ডাঃ মোঃ রুস্তুস আলী ফরাজি মহান জাতীয় সংসদে আলোচনা করে উন্নয়ন মূলক কাজ করার জন্য বরাদ্দ এনেছেন। অথচ তার সাথে দীর্ঘ বছর সম্পর্ক রেখে তুষখালী ইউনিয়নের সংরক্ষিত ৭,৮,৯ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য রোজিনা আক্তারের স্বামী ছোট মাছুয়া গ্রামের জাকির হোসেন হাওলাদার উন্নয়ন কমিটির নামে কাজ ভাগিয়ে নিয়ে ব্যপক অনিয়ম করছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। ওই ইউনিয়নের ৯ নং ওয়ার্ডের তালুকদার বাড়ি গিয়ে দেখা গেছে জাকির হোসেন তালুকদার বাড়ি থেকে মুল সড়ক পর্যন্ত মজবুত (ডবল ইট) ইট সলিং রাস্তা করা রয়েছে। অথচ ওই রাস্তাটি উন্নয়ন করতে হবে বলে স্কীম তৈরী করে উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা বরাবরে জমা দেন। এ ইউনিয়নের বেশ কয়েকটি কজের এরকম ভুয়া স্কীম তৈরী করার অভিযোগ উঠেছে এ জাকির হোসেন হাওলাদারের বিরুদ্ধে।
তুষখালী ইউনিয়নের জন্য উন্নয়ন কমিটি উন্নয়নের জন্য ৯টি স্কীম জমা দিয়েছেন। সেগুলো হলে- ১নং ওয়ার্ডে আলহাজ¦ চাঁনমিয়া শিকদারের বাড়ি থেকে মেইন রাস্তা পর্যন্ত মাটি ভরাট ও ইট সলিং। ২নং ওয়ার্ডে মধ্য তুষখালী সেলিম আকনের বাড়ি রুস্তুম আলী খানের বাড়ি পর্যন্ত মাটি ভরাট ও ইট সলিং। ২নং ওয়ার্ডে মধ্য তুষখালী মহিবুল্লাহর বাড়ি সংলগ্ন পুকুর খনন ও ঘটলা নির্মাণ। ৩নং ওয়ার্ডে মধ্য তুষখালী মরহুম আকবর আলী বাড়ি সংলগ্ন পুকুর খনন ও ঘটলা নির্মাণ। ৪নং ওয়ার্ডে ছোট মাছুয়া হারেস হাওলাদার বাড়ি থেকে মেইন রাস্তা পর্যন্ত মাটি ভরাট ও ইট সলিং। ৫নং ওয়ার্ডে ছোট মাছুয়া সুলতান মাস্টারের বাড়ি সংলগ্ন পুকুর খনন ও ঘটলা নির্মাণ। ৬নং ওয়ার্ডে মরহুম তসিল উদ্দিন আকন বাড়ি থেকে মেইন রাস্তা পর্যন্ত মাটি ভরাট ও ইট সলিং। ৯ নং ওয়ার্ডে জাকির হোসেন তালুকদার বাড়ি থেকে মেইন রাস্তা পর্যন্ত মাটি ভরাট ও ইট সলিং। ৯ নং ওয়ার্ডে মধ্য তুষখালী কাঞ্চন মিয়ার বাড়ি সংলগ্ন পুকুর খনন ও ঘটলা নির্মাণ।
স্থানীয় সচেতন মানুষ মনে করেন উন্নয়ন কমিটির এ লোকজনদের কারনে মাননীয় এমপি সাহেব ও সরকারের ইমেজ সংকটে পরে। সংসদ সদস্য ডাঃ মোঃ রুস্তুস আলী ফরাজি আগেই বলেছেন তিনি কোন অন্যায় কারিকে প্রশ্রয় দিবেন না। সচেতন মানুষ আশা করছেন উন্নয়ন কমিটির এ অনিয়মকেও আশ্রয় দিবেন না।
এ ব্যপারে জানাতে জাকির হোসেন হাওলাদারের মুঠোফোনে একাধিকবার কল দিলেও তিনি রিসিভ করেন নি।
উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মিলন তালুকদার বলেন, ভুয়া স্কীম জমা দেয়ার অভিযোগ থাকতে পারে। তবে আমরা সরেজমিনে গিয়ে স্কীমের সত্যতা নিশ্চিত করে অর্থ বরাদ্দের ব্যবস্থা করি।

উপরে