এস এম আলমগীর হোসেন ,কলাপাড়া প্রতিনিধি : স্বামীর অধিকার আদায় করতে শ্বশুর বাড়িতে অবস্থান নিয়েছে পটুয়াখালীর কলাপাড়া উপজেলার ধানখালী ইউনিয়নের পাঁচজুনিয়া গ্রামের লিজা আক্তার। রবিবার রাত ১১ টা থেকে সোমবার বিকেল ৫ টা পর্যন্ত পার্শ্ববর্তী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের দক্ষিন টেপুড়া গ্রামে স্বামী মো.লিমন মৃধার বাড়ি অবস্থান করে। তাকে দেখে শাশুড়ি ঘরের দরজা বন্ধ করে চলে যায়। প্রায় ৩০ ঘন্টা অবস্থানের পর কোন উপায় না পেয়ে ৯৯৯ নম্বারে ফোন করে। পরে ঘটনস্থালে উপস্থিত হয় আমতলী উপজেলার গাজীপুর পুলিশ ফাড়ির সদস্যরা। এ ঘটনায় এলাকায় চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়েছে। লিজার ভাষ্য মতে, সে পার্শ্ববর্তী উপজেলার হলদিয়া ইউনিয়নের দক্ষিন টেপুড়া গ্রামের স্বপন মৃধার ছেলে লিমনের সাথে সম্পর্ক গরে ওঠে। প্রায় তিন বছরের সম্পর্ক থাকায় বিয়ে করার প্রতিশ্রæতি দিয়ে বিদেশে চলে যায়। লিমন দেশে ফিরে গত ৬ জুন লিজার সাথে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হয়। বিয়ের পর লিজা স্বামীকে নিয়ে বাবার বাড়িতে ১০/১২দিন অবস্থান করে। হঠাৎ স্বামী লিমন উধাও হলে দিশেহারা হয়ে পরে লিজা। লিমনের ফোন বন্ধ পেলে রবিবার রাতেই স্বামীর বাড়ি ছুটে আসে। তাকে দেখে শাশুড়ি ঘরের দরজায় তালা ঝুলিয়ে অন্যত্র চলে যায় বলে লিজার অভিযোগ কয়েছে।
এ ব্যাপারে লিমনের মুঠো ফোনে বার বার যোগাযোগ করার চেষ্টা করলে বন্ধ পাওয়া যায়।গাজীপুর পুলিশ ফাড়ির এ এস আই আব্দুল হক বলেন, ৯৯৯ এর ফোন পেয়ে ঘটনা স্থলে এসেছি। মেয়েটির সাথে কথা বলেছি, কিন্তু লিমনের পরিবারের কাউকে খুজে পাওয়া যায়নি। এ বিষয় নিয়ে স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ও মেম্বারদের সাথে কথা বলেছি।হলদিয়া ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো.মিন্টু মল্লিক বলেন, ঘটনাস্থলে ওই ওয়ার্ডের ইউপি সদস্যকে পাঠানো হয়েছে।ধানখালী ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান মো.রিয়াজ তালুকদার বলেন, পাঁচজুনিয়া গ্রামের বজলুর রহমান হাওলাদার মেয়ের বিয়ে হয়েছে এ খবর শুনেছি। এখন কোন সমস্যার সৃষ্টি হলে মেয়ে পক্ষ আইনি সহযোগিতা নিতে পারে।