ডেস্ক রিপোর্ট : চট্টগ্রামের সীতাকুণ্ডে বিএম কনটেইনার ডিপোতে বিস্ফোরণ ও অগ্নিকাণ্ডে যাদেরই গাফিলতি পাওয়া যাবে তাদের শাস্তি পেতে হবে বললেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল । তদন্তের ফলাফল পাওয়ার পর আমরা সেটি নির্ধারণ করব। মঙ্গলবার সকাল সাড়ে ১১টায় রাজধানীর পুরান ঢাকার ফুলবাড়িয়ায় ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্স অধিদপ্তরে নিহত ফায়ার ফাইটার শাকিল তালুকদারের জানাজা শেষে তিনি সাংবাদিকদের এ কথা বলেন।এর আগে নিহত ফায়ার ফাইটার শাকিল তরফদারের মরদেহে শ্রদ্ধা জানান স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান।পরে তার জানাজায় অংশ নেন তিনি।মন্ত্রী বলেন, ‘দুটি উচ্চ পর্যায়ের তদন্তদল দুর্ঘটনাস্থলে কাজ করছে। তদন্তের ফল প্রকাশ না পাওয়া পর্যন্ত কার গাফিলতি কিংবা নাশকতা বা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত ঘটনা কি না তা বলতে পারছি না। কিছু একটা ঘটেছে, তা না হলে এত প্রাণ যায় না। এটাও আমি বিশ্বাস করি। তিনি বলেন, ‘ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা যে অকুতোভয় সৈনিক, তারা সব সময় এটার প্রমাণ দিয়েছেন। এফআর টাওয়ারসহ বিভিন্ন সময় আপনারা দেখেছেন। এখানেও তারা সেই সাহসিকতার পরিচয় দিয়েছেন। একমুহূর্ত তারা দেরি করেননি, ছুটে গেছেন। তারা যথাযথ প্রচেষ্টাই নিয়েছিলেন। দুর্ভাগ্য, এতে তাদের ৯ জন নিহত হয়েছেন, তিনজনের মরদেহ শনাক্ত হয়নি। সিএমএইচসহ বিভিন্ন হাসপাতালে গুরুতর আহত হয়ে ১৫ জন চিকিৎসা নিচ্ছেন। জড়িত কেউ প্রভাবশালী হলে ছাড় দেওয়া হবে কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রী কাউকে ছাড় দিয়েছেন? উনি সংসদ সদস্যদেরও ছাড়েন না। কাজেই বার্তাটা স্পষ্ট, যদি কারো সংশ্লিষ্টতা পাওয়া যায়, যদি কারো গাফিলতি দেখা যায়, যদি কেউ কোনোভাবে নাশকতা করে থাকে, তার শাস্তি তাকে পেতেই হবে। তারপর আমরা সেটি নির্ধারণ করব। ফায়ার সার্ভিসের সক্ষমতার বিষয়ে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ঘণ্টা বাজানো ফায়ার সার্ভিস থেকে আধুনিক ফায়ার সার্ভিস নিয়ে আসছি। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা ঘটনার সঙ্গে সঙ্গেই উপস্থিত হন। আগে আমরা দেখতাম ঘটনা শেষ হয়ে গেছে, আগুন নিভে গেছে, তখন ফায়ার সার্ভিস গিয়ে উপস্থিত হতো। পার্থক্যটা এখন এখানেই। প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনায় আমরা ফায়ার সার্ভিসকে একটি সক্ষম বাহিনীতে পরিণত করতে পেরেছি এবং ক্রমাগতভাবে তাদের আরো সক্ষমতা বৃদ্ধি করব। সর্বাত্মকভাবে তারা যেন অগ্নিনির্বাপণে ভূমিকা রাখতে পারে। ‘