ডেস্ক রিপোর্ট : বোমার আঘাতে ক্ষতিগ্রস্ত ‘বাংলার সমৃদ্ধি’ জাহাজ থেকে ২৮ নাবিককে জীবিত ও নিরাপদে উদ্ধার করা হয়েছে। পোল্যান্ডে বাংলাদেশের হাইকমিশন ইউক্রেনের সহায়তায় এই উদ্ধারকাজ করেছে বাংলাদেশ সময় আজ বৃহস্পতিবার রাত ৮টায়। এর মধ্য দিয়ে আতঙ্কিত নাবিকদের অত্যন্ত দ্রুততার সাথে উদ্ধার করে ইউক্রেনের অলভিয়া বন্দরের বাংকারে নেওয়া সম্ভব হলো। তাঁরা এখন সেখানে নিরাপদে আছেন।বিষয়টি নিশ্চিত করে বাংলাদেশ শিপিং করপোরেশনের মহাব্যবস্থাপক ক্যাপ্টেন মুজিবুর রহমান রাত ৮টা ২০ মিনিটে কালের কণ্ঠকে বলেন, ‘৮টার দিকে ২৮ নাবিক এবং নিহত নাবিক হাদিসুর রহমানকে অলভিয়া বন্দর জেটিতে নেওয়া হয়েছে। একটি টাগবোট ইউক্রেনের সহায়তায় বাংলার সমৃদ্ধি জাহাজ থেকে নাবিকদের নিরাপদে নামিয়ে আনে। আজকে তাঁদের বাংকারে রাখা হবে; পর্যাপ্ত নিরাপত্তাব্যবস্থার মধ্যে। পরদিন পরিস্থিতি বুঝে নিশ্চিত নিরাপদ স্থানে তাঁদের রাখা হবে। ক্যাপ্টেন মুজিবুর রহমান বলেন, ‘আমি জাহাজের ক্যাপ্টেন নুর ই আলম সিদ্দিকীর সঙ্গে রাত ৮টায় কথা বলে নিশ্চিত হয়েছি। তারা তখন অলভিয়া বন্দর জেটিতে ছিল। তিনি বলেন, ‘আটকে পড়া নাবিকদের উদ্ধারের আকুতি জানার পর বাংলাদেশ সরকার অত্যন্ত দক্ষতা-দ্রুততার সঙ্গে কূটনৈতিক প্রচেষ্টা চালায়। দুপুরে নৌ প্রতিমন্ত্রী মহোদয়ের সংবাদ সম্মেলনের পর বিকেলেই এই সফলতা এলো। এ ক্ষেত্রে পার্শ্ববর্তী দেশ পোল্যান্ডের বাংলাদেশি দূতাবাস খুব তাৎপর্যপূর্ণ ভূমিকা রেখেছে। উল্লেখ্য, ইউক্রেনের অলভিয়া বন্দরের জলসীমায় আটকে থাকা বাংলাদেশি পতাকাবাহী জাহাজ ‘এমভি বাংলার সমৃদ্ধি’ বোমা হামলার শিকার হয়। গতকাল বুধবার স্থানীয় সময় বিকেল ৫টা ১০ মিনিটে এই হামলায় জাহাজের থার্ড ইঞ্জিনিয়ার হাদিসুর রহমান নিহত হন। এর পর থেকেই জাহাজে থাকা বাকি ২৮ নাবিকের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। গণমাধ্যম, সোশ্যাল মিডিয়াসহ সব স্থানে উদ্ধারের আকুতি জানানোর পর সরকার এগিয়ে আসে এবং দ্রুত কার্যকর পদক্ষেপ গ্রহণ করে সফল হয়।