ফিরোজ আহম্মেদ কালীগঞ্জ,(ঝিনাইদহ) প্রতিনিধিঃ কালীগঞ্জ উপজেলার রাখালগাছি ইউনিয়নের চাঁদপাড়া গ্রামের প্রবাসী আসাদুলের স্ত্রী মোসাম্মৎ ফরিদা বেগম কালীগঞ্জ থানায় বাদি হয়ে একটি অভিযোগ দায়ের করেছেন। অভিযোগপত্রে তিনি উল্লেখ করেন, পহেলা ফেব্রুয়ারি আনুমানিক বেলা ২ টার সময় একই গ্রামের মৃত হাবিবুল্লাহর ছেলে মোহাম্মদ আল-আমিন(৪৩) ও তার স্ত্রী নাসিমা বেগম(৩৮) এবং তার মেয়ে হালিমা খাতুন (২০)আমার বাড়ির মধ্যে প্রবেশ করে আমাকে উদ্দেশ্য করে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ শুরু করে। একপর্যায়ে আলামিনের নির্দেশে তার স্ত্রী ও মেয়ে আমার মাথার চুল ধরে উঠানের উপর ফেলে এলোপাতাড়ি কিল-ঘুষি ও হাতে থাকা লাঠি দিয়ে মারপিট শুরু করে। এমতাবস্থায় অসুস্থ সিজারের রোগী আমার মেয়ে মনি আক্তার রথি ওদের হাত থেকে আমাকে নিবৃত্ত করতে ছুটে আসলে তাকেও মারধর করা হয়। এক পর্যায়ে তারা আমার ঘরে প্রবেশ করে সাব বাক্সে থাকা তিন লক্ষ টাকা জোরপূর্বক ছিনিয়ে নেয়।ঘর নির্মাণের জন্য আমি ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলন করে বাড়িতে রেখেছিলাম।ঘটনার সময় আমার আত্মচিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে এসে আমাকে উদ্ধার করে। তখন দ্রুততার সাথে আলামিন তার স্ত্রী ও কন্যা আমার বাড়ি থেকে পালিয়ে যায়। প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েও শারীরিক অবস্থার উন্নতি না হওয়ায় পরের দিন কালীগঞ্জ থানা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি হই এবং সেখান থেকে চিকিৎসা নিয়ে দুই দিন পর বাড়ীতে ফিরে আসি। এ ব্যাপারে অভিযুক্ত আলামিনের সাথে কথা বলে জানা যায়, ঐ দিন মারামারির কোনো ঘটনা ঘটেনি। এটা সম্পূর্ণ মিথ্যা ও বানোয়াট। আমি ফরিদা বেগমের কাছে ধারের টাকা পাবো। পাওনা টাকা চাইতে তার বাড়িতে যাই,এর বাইরে কিছুই ঘটে নি।কালীগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত ওসি মতলেবুর রহমান জানান, চাঁদ পাড়ায় মারামারি ঘটনার একটি অভিযোগ পেয়েছি।ঘটনার সত্যতা যাচাইয়ের জন্য পুলিশ পাঠিয়েছিলাম। এ ব্যাপারে প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।