সিলেট প্রতিনিধি : সিলেটের গোয়াইনঘাট উপজেলার জাফলংয়ে পর্যটন কেন্দ্রে পর্যটকদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে। টিকিট কাটাকে কেন্দ্র করে কথা কাটাকাটির জেরে পর্যটকদের ওপর হামলা চালায় উপজেলা প্রশাসনের নিয়োগ করা স্বেচ্ছাসেবকরা। বৃহস্পতিবার বেলা ২টার দিকে জাফলংয়ের টিকেট কাউন্টারের সামনে এ ঘটনা ঘটে। এ ঘটনায় পুলিশ সন্ধ্যা পর্যন্ত ৫ স্বেচ্ছাসেবককে আটক করেছে।আটককৃরা হলেন গোয়াইঘাটের পন্নগ্রামের মৃত রাখাল চন্দ্রের ছেলে লক্ষণ চন্দ্র দাস, ইসলামপুর গ্রামের বাবুল মিয়ার ছেলে মো. সেলিম আহমেদ (২১), নয়াবস্তি এলাকার ইউসুফ মিয়ার ছেলে সোহেল রানা, পশ্চিম কালীনগর গ্রামের মৃত আব্দুল কাদিরের ছেলে নাজিম উদ্দিন এবং ইসলামপুর রাধানগর গ্রামে মৃত সিরাজ উদ্দীনের ছেলে জয়নাল আবেদীন।জানা গেছে, সিলেট থেকে একটি পরিবার জাফলংয়ে বেড়াতে যায়। সেখানে জাফলং ট্যুরিস্ট স্পটের প্রবেশ মুখে উপজেলা প্রশাসনের টোল কাউন্টারে ফি দেওয়া নিয়ে তাদের সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয় সেখানে দায়িত্বে থাকা উপজেলা প্রশাসনের স্বেচ্ছাসেবকদের। এর জেরে নারী-পুরুষসহ ৬ পর্যটকের ওপর হামলা চালায় কয়েকজন স্বেচ্ছাসেবক। এ সময় তাদের গায়ে স্বেচ্ছাসেবক লেখা নীল রঙের এপ্রোন ছিল। সেখানে থাকা একাধিক ব্যক্তি নিজেদের ফেসবুকে ঘটনা লাইভ করেন। এতে করে বিষয়টি দ্রুত সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ছড়িয়ে পড়লে নিন্দার ঝড় ওঠে। অনেকে ঘটনার সঙ্গে জড়িতদের কঠোর শাস্তি দাবি করেন।ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন গোয়াইনঘাট উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা তাহমিলুর রহমান। তিনি বলেন, ‘কী বলব, এটা খুবই ন্যাক্কারজনক ঘটনা। আমরা এ ঘটনায় কোনো ধরণের ছাড় দেব না। ঘটনার সঙ্গে জড়িত ৫ জনকে আমরা গ্রেপ্তার করেছি। পাশাপাশি তাদের দায়িত্ব থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে।’
এ ঘটনার জন্য দায়ীদের বিষয়ে প্রশাসন কঠোর জানিয়ে তিনি বলেন, ‘জাফলং পর্যটকদের জন্য অনিরাপদ কিংবা পর্যটকরা আস্থা হারাবেন এমন কিছু আমরা হতে দিতে চাই না। তাই এমন ঘটনার পর দ্রুত পদক্ষেপ নিয়েছি আমরা। দুই পক্ষকে ডেকেছি। শুনানি চলছে। মোবাইল কোর্টের মাধ্যমে দায়ীদের শাস্তি আজকেই দেওয়া হবে।