ফিরোজ আহম্মেদ,ঝিনাইদহ প্রতিনিধিঃ হাজার হাজার টাকার নোট সহ ব্যাগভর্তি টাকা পেয়েও তা ফেরত দিলেন এক দারিদ্র ইজিবাইক চালক ।
ঐ ব্যাগে ছিল নগদ ১লাখ ৭৭হাজার টাকা। টাকা ফেরত পেয়ে খুশীতে আত্মহারা ব্যাগভর্তি টাকার মালিক চালক কে ৫ হাজার টাকা দিতে যান তবে ঘার্মাক্ত আর পরিশ্রান্ত শরীরে মুখে এক চিমটি হাসি দিয়ে তা বিনয়ের সাথে ফেরত দিয়ে ইজিবাইক চালক বলছেন, ‘আপনার টাকা আপনাকে  ফেরত দিতে পেরেছি এটাই বড় কথা’।ঘটনাটি সোমবার(২৫ এপ্রিল) দুপুর ২টার দিকে ঝিনাইদহ জেলার শৈলকুপা উপজলার মালিপাড়া গ্রামের। ইজিবাইক চালকের নাম আনোয়ার হোসেন, তার বাড়ি শৈলকুপা পৌরসভার মালিপাড়া গ্রামে। আর ব্যাগভর্তি টাকার মালিক ছিলেন শৈলকুপার ধাওড়া মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার শিকদার কলেজের প্রভাষক আশরাফুল ইসলাম। তার বাড়ি শৈলকুপা উপজেলার বড়িয়া গ্রামে। ঘটনার বিবরনে জানা গেছে, ধাওড়া মুক্তিযোদ্ধা আব্দুস সাত্তার শিকদার কলেজের প্রভাষক আশরাফুল ইসলাম শৈলকুপার রুপালী ব্যাংক থেকে ১ লক্ষ ৮৭ হাজার টাকা উত্তোলন করে। পরে সেইখান থেকে ১০ হাজার টাকা দেনা পরিশোধ করে ব্যাগভর্তি বাকি টাকা নিয়ে ইজিবাইকে উঠেন তবে ভ’লক্রমে ব্যাগ রেখে নেমে পড়েন। পরে টাকার কথা মনে পড়লে ইজিবাইক চালককে খুঁজতে থাকেন। কারা তখন পাশের যাত্রী ছিল তাদের খোঁজ করেন, পরে জানতে পারেন ইজিবাইক চালকের বাড়ি মালিপাড়া তবে কে সে তা সনাক্ত বা পরিচয় নিশ্চিত হতে না পেরে হতাশ হন। উপায়ন্তর না পেয়ে শৈলকুপা থানায় জিডি করতে যান। এরই মধ্যে ইজিবাইক চালক বাড়িতে পৌছালে গাড়িতে থাকা ব্যাগটি তার স্ত্রীর নজরে আসে। তখনও ইজিবাইক চালক আনোয়ার হোসেন জানেন না তার গাড়িতে রাখা ব্যাগে এতগুলো টাকা আছে। স্ত্রীর কথা শুনে ব্যাগ খুলে দেখেন হাজার হাজার টাকা, যার সবই ১হাজার টাকার নোট! টাকার ২টি বান্ডিলের সাথে ভিজিটিং কার্ড ও কাগজপত্র পড়ে শৈলকুপার মালিপাড়া মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষকে অবগত করে ব্যাগভর্তি টাকা রেখে আসেন।
ইতিমধ্যে শৈলকুপা থানা পুলিশ জানতে পারে মালিপাড়া মাদ্রাসায় হারিয়ে যাওয়া ঐ টাকা জমা রাখা হয়েছে। তখন থানার ওসি আমিনুল ইসলাম উভয় পক্ষকে থানায় ডেকে প্রকৃত মালিককে তার টাকা বুঝিয়ে দেন। একই সাথে ইজিবাইক চালক আনোয়ার হোসেনের সততার জন্য নগদ ৫শত টাকা পুরষ্কৃত করেন। আর প্রভাষক মাওলানা আশরাফুল ইসলাম ৫হাজার টাকা দিতে চাইলেও তা নেননি ইজিবাইক চালক আনোয়ার।
ঘটনা প্রসঙ্গে প্রভাষক মাওলানা আশরাফুল ইসলাম জানান, রুপালী ব্যাংক থেকে ১লাখ ৮৭ হাজার টাকা তুলেছিলেন পারিবারিক ও অন্যান্য খরচাদি ও দেনা পরিশোধের জন্যে। ব্যাংক থেকে নেমে ইজিবাইকে উঠেন,তারপর ভুল করে টাকার ব্যাগ রেখে গাড়ি থেকে নেমে পড়েন আর খুঁজে পাননি। ইজিবাইক চালকের সততার কারণে হারিয়ে যাওয়া এতগুলো টাকা ফেরত পেয়েছেন জানিয়ে আশরাফুল জানান, খুঁশি হয়ে তাকে ৫হাজার টাকা দিতে গেলে ইজিবাইকচালক তা বিনয়ের সাথে ফেরত দিয়ে বলেছেন টাকাগুলো মালিকের হাতে ফেরত দিতে পেরেছেন এটাই প্রাপ্তি। আশারাফুল জানান, ইজিবাইক চালক আনোয়ার যখন বাড়ি যায় তখনও সে জানতে পারেনি ব্যাগ ও টাকার কথা। আগে তার স্ত্রীর নজরে আসে টাকার ব্যাগ, তারপর টাকার বিষয় জানতে পারে ইজিবাইক চালক। এত টাকা সহ ব্যাগ দেখে স্ত্রী যখন রাগবাগ শুরু করে, এমন কান্ড কি করে হলো জানতে চায় তখন দুজনে মিলে ঠিকানা-নাম জেনে পাশের মাদ্রাসায় জানায় এবং ফেরত দিয়ে আসে।
শৈলকুপা থানার অফিসার ইনচার্জ আমিনুল ইসলাম জানান, টাকা হারিয়ে থানায় জিডি করতে আসে আশরাফুল নামে এক ব্যক্তি। পরে খবর পায় টাকাগুলো মাদ্রাসায় ইজিবাইক চালক গচ্ছিত রেখেছে। পরে সেখান থেকে টাকা নিয়ে উভয়পক্ষকে থানায় এনে প্রকৃত মালিককে টাকা ফেরত দেয়া হয়। ইজিবাইক চালকের এমন সততা দেখে তাকে পুরস্কৃত করা হয়েছে।