নোয়াখালীতে করোনায় একদিনে নতুন শনাক্ত ৭৬ জন,মৃর্ত্যু-১

প্রকাশিত: ০৬-০৪-২০২১, সময়: ১১:৫১ |
Share This

মোস্তফা মহসিন ,(নোয়াখালী) : বর্তমানে নোয়াখালীতে আবার লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা। মানা হচ্ছেনা লকঢাউন সহ স্বাস্থ্যবিধী ও সামাজিক দৃরত্ব বজায় রাখার নিয়ম। জেলায় একদিনে নতুন করে ৭৬ জন আক্রান্ত হয়েছে এবং মারা গেছে ১জন। জেলার প্রধান বানিজ্যিক শহর চৌমুহনীসহ গ্রামাঞ্চলের হাটবাজারগুলোতে জনসমাগম বেশী। জেলায় ঢিলেঢালা লকডাউন চলছে। প্রশাসনের নির্দেশনা অমান্য করে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মাস্ক ছাড়াই বিভিন্ন বেসরকারী প্রতিষ্ঠানে, হাটবাজারে, রাস্তাঘাটে ও অভ্যন্তরিন রুটে চলাচলকারী বিভিন্ন যানবাহনে গাদাগাদী করে অবাধে চলাচল করছে অনেকেই। বেগমগঞ্জের চৌমুহনী শহরের ব্যবসায়ীদের মধ্যে একটি সংঘবদ্বচক্র রহস্যজনক কারনে লকঢাউন অমান্য করে অধিকাংশ ব্যবসা প্রতিষ্ঠান খোলা রেখেছে। মঙ্গলবার (৬ এপ্রিল) সকালে জেলা সিভিল সার্জন অফিস সৃত্র জানায়, গত ২৪ ঘন্টায় ৫৯২টি নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে নতুন করে আরও ৭৬ জনের দেহে করোনা শনাক্ত হয়েছে। এনিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৬২৮২ জন। গত ২৪ ঘন্টায় জেলার কবিরহাটে মোঃ সাইফউদ্দিন (৬৫) নামে এক ব্যবসায়ী মারা গেছে , এনিয়ে জেলায় মারা গেছে এ পর্যন্ত ৯৩জন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৫৫২৫জন। আক্রান্তদের মধ্যে বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ রয়েছে। নতুন আক্রান্তের মধ্যে জেলার সদরে ২০ জন, বেগমগঞ্জে ১৫জন, কোম্পানীগঞ্জে ০৬ জন, সোনাইমুড়িতে ০৯ জন, চাটখিলে ০৯জন, সেনবাগে ০৫জন, হাতিয়ায় ০৩জন, সুবর্নচরে ০২জন ও কবিরহাট উপজেলায় ০৭ জন।এনিয়ে জেলায় এ পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ৬২৮২ জন। লকঢাউন দেয়া হলেও প্রশাসনের তেমন তৎপরতা না থাকায় বিশেষ করে জেলার গ্রামাঞ্চলের বিভিন্ন হাটবাজারে বেড়েছে জনসমাগম। স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মাস্ক ছাড়াই চলাচল করছে অনেকেই। নোয়াখালীতে সবচেয়ে বেশী করোনা ঝুঁকিতে রয়েছে জেলার প্রধান বানিজ্য কেন্দ্র চৌমুহনী শহরসহ বেগমগঞ্জ উপজেলা। বেগমগঞ্জ উপজেলায় এ পর্যন্ত আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ১৩০০ জন, সুস্থ হয়েছেন ১০৬৩ জন এবং বেগমগঞ্জে এ পর্যন্ত মারা গেছে সর্বোচ্চ ২৯জন ।

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে