মধুখালিতে মাদক ব্যবসার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত: ০১-০৪-২০২১, সময়: ১৪:৩২ |
Share This

বুলবুল, সালথা (ফরিদপুর) : ফরিদপুরের মধুখালী পৌরসভার ২ নম্বর ওয়ার্ডের মধুপুর এলাকায় মাদক ব্যবসার প্রতিবাদে মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলন করেছে গ্রামবাসী। শনিবার দুপুরে আড়কান্দি বটতলায় অনুষ্ঠিত এ মানববন্ধন ও সংবাদ সম্মেলনে স্থানীয় জনপ্রতিনিধি, রাজনীতিবীদ ও ভুক্তভোগী গ্রামবাসী অংশ নেন।
সংবাদ সম্মেলনে মো. শাজাহান খান লিখিত বক্তব্যে বলেন, মধুপুর গ্রামের পল্লী চিকিৎসক আব্দুস সামাদ খানের পরিবার দীর্ঘদিন মাদক ব্যবসার সঙ্গে জড়িত। এর প্রতিবাদ করায় তার ছেলে সোহেল খানকে ইয়াবা দিয়ে গ্রেফতার করিয়েছে। রাতের আঁধারে বাড়িতে মাদক রেখে আমাদেরও হয়রানির হুমকি দিচ্ছে।
সোহেলের স্ত্রী শিখা বেগম বলেন, তার স্বামী ঘরে ঘুমিয়ে ছিল। এক লোককে দিয়ে ডেকে নিয়ে মধুখালী রেলগেটের সজলের বাড়িতে আটকে ইয়াবাসহ তাকে পুলিশ দিয়ে ধরিয়ে দেয়া হয়।
২ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মীর্জা আব্বাস হোসেন বলেন, সামাদ খানের পিতা ছিলো গ্রামের চৌকিদার। কিন্তু মাদক ব্যবসা করে সে এখন গাড়ি ও জমির মালিক হয়ে গেছে। তিনি বলেন, তার কারণে এলাকার তরুন সমাজকে ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে।
এর আগে, ২০১৭ সালে তিন হাজার একশটি ইয়াবা, বিদেশি মদ ও যৌন উত্তেজক বড়ি, পুলিশের বুট ও মাদক বিক্রির ৭৭ হাজার টাকাসহ সামাদ খান ও তার মা রোকেয়া বেগমকে গ্রেফতার করে র‍্যাব।
ওই মামলার সাক্ষী মধুপুর গ্রামের হায়দার আলী খান বলেন, তার সামনেই এসব মাদক ও মালামাল উদ্ধার করলেও সামাদ খান তাকে ভয় দেখিয়ে আদালতে মিথ্যা সাক্ষী দিতে বাধ্য করে।সংবাদ সম্মেলনে সভাপতির বক্তব্যে মধুখালী আখচাষী কল্যাণ সমিতির সাবেক সভাপতি ও ব্যবসায়ী মুন্সি এনায়েত হোসেন বলেন, তার গ্রামে ইয়াবা কেনার জন্য প্রতি ঘণ্টায় কমপক্ষে ২৫টি মোটরসাইকেল প্রবেশ করে।
তিনি বলেন, তার দোকান ভাড়া নিয়ে সোহেল টেইলারিং এর ব্যবসা করতো। দশ বছর আগে একদিন শুনি তার দোকানে ফেনসিডিল পাওয়া গেছে। সোহেলের মতো অনেক তরুনকে মাদক দিয়ে ধ্বংস করা হচ্ছে।

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে