কুষ্টিয়ার হরিপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জমি দখলের চেষ্টার অভিযোগ অভিযোগ

প্রকাশিত: ৩১-১০-২০২১, সময়: ১৩:৪২ |
Share This

কুষ্টিয়া জেলা প্রতিনিধিঃ কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ১নং হাটশ হরিপুর ইউনয়িনের স্বাস্থ্য কেন্দ্রের নির্ধারিত সাড়ে ১৬শতক জমিটি স্থানীয় প্রভাবশালী মহল কর্তৃক দখল চেষ্টার অভিযোগ উঠেছে। স্থানীয়দের এই অভিযোগকে নাকচ করে ইউপি চেয়ারম্যান এম সম্পা মাহমুদ বলেন স্বাস্থ্য কম্পেøক্সের জমিটি চারিদিক থেকে দখল হতে হতে এখন অর্ধেকে নেমে এসেছে, অগত্যা যেটুকু এখনও আছে সেটাকে রক্ষা করতে সীমানা প্রাচির নির্মানের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। তবে জমিটির স্বত্ত¡াধিকার প্রতিষ্ঠান কুষ্টিয়া সিভিল সার্জন ডা: এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম কিছুই জানেন না তার জমিতে প্রাচির নির্মানের বিষয়ে। অন্যদিকে ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জমিটি অবৈধ দখলবাজ চক্রের দখল মুক্ত করতে স্থানীয় বাসিন্দা মৃত: আহম্মেদ আলীর ছেলে জিয়ারুল ইসলাম একটি লিখিত দরখাস্ত দিয়েছেন জেলা প্রশাসক কুষ্টিয়া, স্থানীয় সরকার বিভাগ কুষ্টিয়া, সিভিল সার্জন, নির্বাহী কর্মকর্তা সদর উপজেলা কুষ্টিয়া এবং সহকারী কমিশনার ভুমি কুষ্টিয়া সদর। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সংশ্লিষ্ট দপ্তরের কর্মকর্তাগণ। সংশ্লিষ্ট দপ্তর গুলিতে স্থানীয় বাসিন্দা জিয়ারুলের দেয়া লিখিত অভিযোগ সূত্রে জানা যায় যে, কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ১নং হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের স্বাস্থ্য কেন্দ্রটি দীর্ঘদিন ধরে পরিত্যাক্ত থাকা অবস্থায় ইউনিয়নবাসী স্বাস্থ্য সেবা বঞ্চিত হয়ে আসছিলো। ইউনিয়নবাসীর দাবির প্রেক্ষিতে স্বাস্থ্য বিভাগের উদ্যোগে ইতোমধ্যে নির্ধারিত স্থান যার মৌজা: হাটশ হরিপুর, খতিয়ান নং ৮০২/১ ও আর এস দাগ নং ৩৩২/৮৯৬ ও ৩৩২/৮৯৭ জমির পরিমান সাড়ে ১৬ শতক। হাটশ হরিপুর বাজার প্রাঙ্গনের ওই জমিতে নতুন স্বাস্থ্য কেন্দ্র নির্মানে অপেক্ষামান। অদ্য ২৭ অক্টোবর,২০২১ বুধবার সকালে কে বা কারা হঠাৎ সেখানে ইট বালু খোয়া, সিমেন্টসহ যাবতীয় নির্মান সামগ্রী ফেলে নির্মান শ্রমিক লাগিয়ে অবৈধভাবে পাকা করে বাউন্ডারী ওয়াল নির্মান শুরু করেছে। স্থানীয় প্রভাবশালীদের সম্পৃক্ততার মাধ্যমে এই দখলীকরণের বিরুদ্ধে কেউ মুখ খুলতে সাহস পাচ্ছেন। তবে প্রচন্ড বিক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করছেন স্থানীয়রা। এমনকি যে কোন সময় সেখানে রক্তপাতের ঘটনাসহ প্রাণহানির আশঙ্কাও উড়িয়ে দেয়ার মতো নয়। ভুমি অফিসের সূত্রমতে, এসএ, সিএস ও সর্বশেষ আরএস রেকর্ডভুক্ত নিষ্কন্ঠক সরকারী এই জমিটি প্রভাবশালীদের অবৈধভাবে জবর দখলের হাত থেকে রক্ষায় জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের আবেদন জানিয়ে স্মরণাপন্ন হন তিনি। তিনি দাবি করেন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জমিটি প্রভাবশালীদের হাতে অবৈধ দখলের আগ্রাসন থেকে মুক্ত করে ইউনিয়নবাসীর স্বাস্থ্য সেবা প্রতিষ্ঠান রক্ষা করতে এখনই জরুরী ভিত্তিতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা দরকার।এদিকে বুধবার সকালে একদল নির্মাণ শ্রমিক স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জমিতে প্রাচির নির্মানের কাজ শুরু করলে বিক্ষুব্ধ এলাকাসীর প্রতিরোধের মুখে কাজ ফেলে পালিয়ে যায় বলে দাবি করেন স্থানীয় ইয়ারুল ইসলাম। শালদাহ গ্রামের উম্মত আলী মিস্ত্রীর ছেলে নির্মান শ্রমিক চকো মিস্ত্রী বলেন, আমরা দিন মজুর, সারাদিন শ্রম দিই, দিন শেষে হাজিরি(টাকা) নিয়ে চাল/ডাল নিয়ে বাড়ি গিয়ে বাল বাচ্চা নিয়ে খায়ে বাঁচি। এখানে কে কার জমি দখল করলো কি না করলো তা তো জানিনা। আমাকে চেয়ারম্যান সাহেব কাজে লাগাইছে, উনিই ভালো জানেন, এই জমি কার। এবিষয়ে ইউপি চেয়ারম্যান এম সম্পা মাহমুদ মুঠোফোনে আলাপাকালে জমি দখলের অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, হাটশ হরিপুর ইউনিয়নের মতো জায়গায় ওই জমি কেউ দখল করার ক্ষমতা রাখে ? ওখানে বাউন্ডারি ওয়াল নির্মান করে জমিটি দখলবাজদের খপ্পর থেকে রক্ষা করতেই ওখানে কাজ করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছিলো। কুষ্টিয়া সিভিল সার্জন ডা: এইচ এম আনোয়ারুল ইসলাম বলেন, ইউনিয়ন স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ওই জমিটি রেকর্ডীয় ভাবে সরকারী সম্পত্তি। ওখানে কোন কাজ হবে আর সেটা সিভিল সার্জন অফিস জানবে না তা তো হয়না। বিষয়টি আমরা খোঁজ নিয়ে ব্যবস্থা গ্রহনের চেষ্টা করছি। কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সাধন কুমার বিশ্বাস বলেন, হরিপুর স্বাস্থ্য কেন্দ্রের জমিতে অবৈধ স্থাপনা নির্মান করা হচ্ছে এমন একটি লিখিত অভিযোগ পেয়েছি। বিষয়টি খতিয়ে দেখে দখলমুক্ত করতে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে