শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগের সৎ,দক্ষ, নির্ভিক উজ্জ্বল নক্ষত্র বেগম বুলবুল আখতার

এস এম দুলাল : সরকারের উন্নয়ন ধারা কে বেগমান করতে যারা নিরালস ভাবে কাজ করছেন তাদেরই একজন শিক্ষা প্রকৌশলী বিভাগের প্রধান প্রকৌশলী(চলতি দায়িত্ব ) বেগম বুলবুল আখতার। ১৯৮৫ সালের জুন মাসে শিক্ষা প্রকৌশল বিভাগে সহকারী প্রকৌশলী পদে চাকুরীতে যোগদান করেন বুলবুল আখতার । তার চাকুরী জীবনে সরকারের নিয়ম-নীতি ও দিকনির্দেশনা মেনে সুপারিনটেনডেন্ট প্রধান প্রকৌশল অফিস, সাভার নির্বাহী প্রকৌশল, টাঙ্গাইল নির্বাহী প্রকৌশল, রাজশাহী নির্বাহী প্রকৌশলী ও নির্বাহী প্রকৌশলী হিসাবে নওগাঁতে দায়িত্ব পালন করেন। টেন্ডার,ডিজাইন,পিরকল্পনা, প্রশাসনিক কাজে তার অনেক সফল পদচারনা। দায়িত্ব পালন কালে সেবাগ্রহীতা ও সহকর্মীদের কাছে সুনাম ও ভালোবাসা অর্জন করেছেন। বুলবুল আখতার যেসব জেলা ও বিভাগীয় অফিসে দায়িত্ব পালন করেছেন সেসব অফিসকে ঘুষ, দুর্নীতি, অনিয়ম ও হয়রানী মুক্ত করেছেন। বুলবুল আখতার বিষয়ে প্রকৌশল বিভাগে জানতে চাইলে তারা বলেন বুলবুল আখতার স্যারের মতো প্রত্যেক সেক্টরে যদি এমন অফিসার হতো তাহলে দেশে এতো দুর্নীতি ও অনিয়ম থাকতো না। বুলবুল আখতার কথা মনে করে ঐ অফিসের এক সহকর্মী আবেগে আপ্লুত হয়ে যায়। বুলবুল আখতার এর ব্যক্তিগত জীবনে এক পুত্র সন্তান আছে। তিনি বেসরকারী মোবাইল অপারেটর কোম্পানীতে চাকুরী করছেন। ২০১৬ সালে বুলবুল আক্তার জটিল রোগে আক্রান্ত হন। তার চিকিৎসা করার মতো আর্থিক সামর্থ্য ছিল না। তিনি তার আত্মীয়-স্বজন, বন্ধু-বান্ধবী এবং সহকর্মীদের সাহায্য সহযোগিতার মাধ্যমে এক বছর চিকিৎসা গ্রহণ করেন। এক বছর চিকিৎসা শেযে তিনি জটিল রোগ্ থেকে আরোগ্য লাভ করেন। বর্তমানে তিনি পূর্ণ সুস্বাস্থের অধিকারিনী। লোভনীয় পদে চাকুরী করার পরও ঢাকায় তার নিজের কোনো জমি বা ফ্ল্যাট নেই। সর্বশেষ তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও শিক্ষা মণ্ত্রীর আস্থা,ভালোবাসায় অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলীর পদে থেকে প্রধান প্রোকৌশলীর দায়িত্ব বিচক্ক্ষনতার সহিত পালন করেন। দায়িত্ব পালন কালে শিক্ষা প্রোকৌশল বিভাগের সহিত সংশ্লিষ্ট সকল বিভাগ ও মন্ত্রণালয় সমূহের সাথে সু-সম্পর্ক বিদ্যামান ছিল। গত ১৯ শে নভেম্বর, ২০২০ ইং তারিখ থেকে অবসরজনিত ছুটিতে আছেন। বর্তমানে তিনি সুস্বাস্থ্যের অধিকারিনী। বুলবুল আক্তারের সততা, কর্ম দক্ষতা বিবেচনা করে উন্নয়নের ধারা অব্যহত রাখতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ও মাননীয় শিক্ষা মন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে চুক্তি ভিত্তিক নিয়োগের বিষয়টি সুবিবেচনা করা দরকার বলে সুশীল সমাজ মনে করেন। উন্নয়নের জন্য সরকারের প্রতিটি দপ্তরে দক্ষ লোকের প্রয়োজন রয়েছে। যাদের হাত ধরে দেশ এগিয়ে চলেছে তাদের কে মুল্যয়ন করতে হবে। এক সময় দেশে প্রতি ঘন্টায় বিদ্যুৎ চলে যেত, অপেক্ষা করতে হতো বিদ্যুৎ এর জন্য, প্রতিনিয়ত রাস্তায় বিদ্যুৎতের জন্য মিছিল মিটিং হতো। সেই অন্ধকার বাংলাদেশ এখন আলোকিত। বিদ্যুৎ যায়না বেলেই ভুল হবে না। নিজস্ব অর্থায়নে নির্মিত হয়েছে পদ্মা সেতু । সরকারের কঠোর সমালোচকরাও স্বীকার করে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে প্রতিটি সেক্টরে। আর এটা সম্ভব হয়েছে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বলিষ্ট নেতৃত্বের কারনে। মানুষের মৌলিক চারটি চাহিদার অন্যতম শিক্ষা । উন্নত জাতি গঠনে শিক্ষার কোন বিকল্প নাই। বর্তমান সুযোগ্য শিক্ষা মন্ত্রীর একান্ত প্রচেষ্টায় বিশ্বায়নকে উপলব্ধি করে সময়োপযোগী শিক্ষা ব্যবস্থা গড়ে তুলতে নানা মুখি বাস্তব সম্মত ও কর্মমূখী ব্যবস্থা গ্রহন করা হয়েছে । ফলে দেশের উন্নয়নের জন্য এখনো প্রয়োজন রয়েছে প্রকৌশলী বেগম বুলবুল আখতারদের।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Comments are closed.

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক ও প্রকাশক : ডাঃ আওরঙ্গজেব কামাল
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : ইজ্ঞি: মোঃ হোসেন ভূইয়া।
বার্তা সম্পাদক : জহিরুল ইসলাম লিটন
যুগ্ন-সম্পাদক : শামীম আহম্মেদ

ঢাকা অফিস : জীবন বীমা টাওয়ার,১০ দিলকুশা বানিজ্যিক (১০ তলা) এলাকা,ঢাকা-১০০০
মোবাইলঃ ০১৭১৬-১৮৪৪১১,০১৯৪৪২৩৮৭৩৮

E-mail:dnanewsbd@gmail.com

ওয়েবসাইট নির্মানে: আইটি হাউজ বাংলাদেশ