চলতি বছর যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্র দফতরের আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে ১৯জন আশ্রয়প্রার্থী মারা গেছেন

ডেস্ক রিপোর্ট : চলতি বছরের ৬ আগস্ট যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেন থেকে পালিয়ে আসা ৪১ বছর বয়সী আবদুল্লাহ আহমেদ আবদুল্লাহ আলহাবিবকে গত ৯ নভেম্বর ম্যানচেস্টার হোটেলের একটি কক্ষে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায় চলতি বছর যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্র দফতরের আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে ১৯জন আশ্রয়প্রার্থী মারা গেছেন – এটি একই সময়ের মধ্যে বিপদজনক চ্যানেলে ছোট নৌকা ক্রসিংয়ে যারা প্রাণ হারিয়েছেন তার চেয়ে পাঁচগুণ বেশি।
গার্ডিয়ান সূত্র জানায়, যারা মারা গেছেন তাদের বেশিরভাগের পরিচয় জনসমক্ষে প্রকাশ করা হয়নি এবং তাদের মৃত্যুর কারণ অস্পষ্ট। অনেক আশ্রয়প্রার্থী যাদের বয়স ২০-২৪ বয়সের মধ্যে তারা যুক্তরাজ্যের ভ্রমণের আগে শারীরিক ও মানসিকভাবে ফিট এবং সুস্থ ছিলেন। সাম্প্রতিক মৃত্যুর মধ্যে একজন হলেন আইভরি কোস্টের ২৭ বছরের মোহাম্মদ ক্যামেরার। ৯ নভেম্বর লন্ডনের হোম অফিসের আওতায় একটি হোটেলের নিজ কক্ষে তাকে মৃত অবস্থায় পাওয়া যায়।
তার এক বন্ধু, যিনি তার সাথে ক্যালাইস থেকে ভ্রমণ করেছিলেন। তিনি গার্ডিয়ানকে জানান, ‌‘তিনি একজন সুস্থ ও হাসিখুশি ব্যক্তি ছিলেন। আমরা যখন যুক্তরাজ্যে পৌঁছেছিলাম তখন তিরি খুবই উল্লসিত ছিলেন। কারণ, তিনি বিশ্বাস করেছিলেন যে, এখন তার একটি উন্নত জীবন হতে চলেছে।যুক্তরাজ্যের স্বরাষ্ট্র দফতরের একজন মুখপাত্র মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন এবং কর্মকর্তারা বলেছেন যে, তারা এই ঘটনার জন্য ‘দুঃখিত’।চলতি বছরের ৬ আগস্ট যুদ্ধবিধ্বস্ত ইয়েমেন থেকে পালিয়ে আসা ৪১ বছর বয়সী আবদুল্লাহ আহমেদ আবদুল্লাহ আলহাবিবকে ম্যানচেস্টার হোটেলের একটি কক্ষে মৃত অবস্থায় পাওয়া গিয়েছিল। ইয়েমেন, সিরিয়া ও ইরান থেকে অন্য ১৫ জনের সাথে আলহাবীব একটি ছোট নৌকায় ব্রিটেনে প্রবেশ করেছিলেন। তাদের বর্ডার ফোর্সের হাতে তুলে নেওয়ার পর, ম্যানচেস্টারের হোটেলে নিয়ে যাওয়ার প্রাক্কালে বেডফোর্ডশায়ারের ইয়ার্লের উড ইমিগ্রেশন অপসারণ কেন্দ্রে রাখা হয়।আলহাবিবের সাথে নৌকায় থাকা আশ্রয়প্রার্থীদের মধ্যে একজন অভিভাবককে সেই সময় বলেছিলেন, ‘আমরা সকলেই আমাদের দেশকে হারিয়েছি, পরিবারকে হারিয়েছি, আমাদের ভবিষ্যত হারিয়েছি। যখন আমরা ক্যালাইজে নৌকায় উঠলাম তখন আমাদের মনে হলো আমাদের যাওয়ার জন্য সমুদ্রই একমাত্র জায়গা।
৩০ নভেম্বর একটি অনুসন্ধানী জরিপে জানা যায়, সুবারাকনয়েড রক্তক্ষরণের ফলে অস্কার ওকউউরিমে নামে একজন নাইজেরিয়ান ব্যক্তির মৃত্যুকে ‘অস্বাভাবিক’ বলে বিবেচনা করা হয়েছিল এবং অবহেলা তার মৃত্যুর কারণ ছিল।সেপ্টেম্বরে গ্লাসগোর বেশ কয়েকজন সাংসদ এমন তিনটি মৃত্যুর তদন্তের আহ্বান জানিয়েন।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Comments are closed.

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক ও প্রকাশক : ডাঃ আওরঙ্গজেব কামাল
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : ইজ্ঞি: মোঃ হোসেন ভূইয়া।
বার্তা সম্পাদক : জহিরুল ইসলাম লিটন
যুগ্ন-সম্পাদক : শামীম আহম্মেদ

ঢাকা অফিস : জীবন বীমা টাওয়ার,১০ দিলকুশা বানিজ্যিক (১০ তলা) এলাকা,ঢাকা-১০০০
মোবাইলঃ ০১৭১৬-১৮৪৪১১,০১৯৪৪২৩৮৭৩৮

E-mail:dnanewsbd@gmail.com

ওয়েবসাইট নির্মানে: আইটি হাউজ বাংলাদেশ