সরকারি বাঙলা কলেজ গণহত্যার স্মৃতিফলক উন্মোচন করলেন শিক্ষা মন্ত্রী

এ্যাড . মাসুদ করিম : মঙ্গলবার দক্ষিণ এশিয়ার প্রথম ও একমাত্র গণহত্যা জাদুঘর ‘১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্ট’ এর অধীনে পরিচালিত গণহত্যা-নির্যাতন ও মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক গবেষণা কেন্দ্রের উদ্যোগে সকালে ঢাকার মিরপুরের সরকারি বাঙলা কলেজ বধ্যভূমি, গণহত্যার সাক্ষ্য বহনকারী আমগাছ এবং গণহত্যার সাক্ষ্য বহনকারী জোড়া গাবগাছ এই তিনটি স্মৃতিফলক উন্মোচন করা হয়।
সরকারি বাঙলা কলেজ বধ্যভূমিতে নির্মিত শহিদ স্মৃতিফলক উন্মোচন করেন শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের মাননীয় মন্ত্রী ডা. দীপু মনি, এমপি। গণহত্যার সাক্ষ্য বহনকারী জোড়া গাবগাছের স্মরণে নির্মিত শহিদ স্মৃতিফলক উন্মোচন করেন শিক্ষা উপমন্ত্রী জনাব মহিবুল হাসান চৌধুরী, এমপি ও গণহত্যার সাক্ষ্য বহনকারী আমগাছের স্মরণে নির্মিত শহিদ স্মৃতিফলক উন্মোচন করেন ১৯৭১ : গণহত্যা-নির্যাতন আর্কাইভ ও জাদুঘর ট্রাস্ট এর সভাপতি ড. মুনতাসীর মামুন। ফলক উন্মোচন অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা-১৪ আসনের সংসদ সদস্য জনাব আসলামুল হক, এমপি।
উল্লেখ্য, ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধের সময় এই বাঙলা কলেজে পাকিস্তানি সেনাবাহিনী ক্যাম্প স্থাপন করে। এই কলেজটি হয়ে উঠে পাকিস্তানিদের হত্যাযজ্ঞের অভয়ারণ্য। এখানে পাকিস্তানি বাহিনী ও তার দোসরা মুক্তিযোদ্ধা, স্থানীয় বাঙালিদের ধরে এনে নির্মমভাবে হত্যা করে আর নির্যাতন করে অসংখ্য মা-বোনকে। এই কলেজ প্রাঙ্গণে রয়েছে গণকবর, লাশ ফেলা কুয়া, জোড়া গাবগাছ যেখানে সারিবদ্ধভাবে দাঁড় করিয়ে ব্রাশফায়ার করে হত্যা করা হত বাঙালিদের। এখানে ছিল আম বাগান- যেখানে গাছের শিকড়ে মাথা রেখে জবাই করা হত নৃশংসভাবে, আছে বেতের ঝাড় – যেখানে আধমরা করে ঝুলিয়ে রাখা হয় বাঙালির দেহ। বিজয়ের মুহূর্তে পুরো ক্যাম্পাস জুড়ে ছিল অজ¯্র জবাই করা দেহ, মানুষের কংকাল আর পঁচা গলা লাশ।
অনুষ্ঠানে মাননীয় মন্ত্রী ডা. দীপু মনি, এমপি বলেন, এই ফলক স্থাপনের মাধ্যমে নতুন প্রজন্ম জানতে পারবে একাত্তরে পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর গণহত্যা-নির্যাতন ও আমাদের পূর্বপুরুষদের আত্মত্যাগের ইতিহাস। গণহত্যার স্মৃতি সংরক্ষণে, গণহত্যা নিয়ে রাজনীতি বন্ধে এবং সর্বোপরি মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বিকাশে এই স্মৃতিফলকগুলো ভূমিকা রাখবে বলেও তিনি আশা প্রকাশ করেন।
ফলক উন্মোচন অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন সরকারি বাঙলা কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. ফেরদৌসী খান, মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর এর মহাপরিচালক অধ্যাপক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক এবং গণহত্যা জাদুঘর ট্রাস্টের ট্রাস্টি স¤পাদক ড. চৌধুরী শহীদ কাদের। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন স্থানীয় জন প্রতিনিধি ও সকল শ্রেণি পেশার মানুষ।
সংবাদটি আপনার সংবাদপত্রে প্রকাশের জন্য অনুরোধ করছি।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Comments are closed.

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক ও প্রকাশক : ডাঃ আওরঙ্গজেব কামাল
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : ইজ্ঞি: মোঃ হোসেন ভূইয়া।
বার্তা সম্পাদক : জহিরুল ইসলাম লিটন
যুগ্ন-সম্পাদক : শামীম আহম্মেদ

ঢাকা অফিস : জীবন বীমা টাওয়ার,১০ দিলকুশা বানিজ্যিক (১০ তলা) এলাকা,ঢাকা-১০০০
মোবাইলঃ ০১৭১৬-১৮৪৪১১,০১৯৪৪২৩৮৭৩৮

E-mail:dnanewsbd@gmail.com

ওয়েবসাইট নির্মানে: আইটি হাউজ বাংলাদেশ