পালমিরায় সিরীয় বাহিনীর প্রবেশ

প্রকাশিত: ০২-০৩-২০১৭, সময়: ১৩:৫৬ |
Share This
রাশিয়া-সমর্থিত সিরিয়ার সরকারি বাহিনী ও তাদের মিত্ররা ইসলামিক স্টেটের (আইএস) জঙ্গিদের হটিয়ে ঐতিহাসিক নগরী পালমিরায় প্রবেশ করেছে। বুধবার জঙ্গিদের সঙ্গে লড়াই করতে করতে সরকারি বাহিনী পালমিরায় প্রবেশের পথ করে নেয় বলে জানিয়েছে পর্যবেক্ষক গোষ্ঠী সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস।
এর আগে লেবাননের শিয়া রাজনৈতিক গোষ্ঠী হিজবুল্লাহ পরিচালিত একটি গণমাধ্যমের প্রতিবেদনে বলা হয়, সিরীয় সেনাবাহিনী ও এর মিত্র বাহিনীগুলো শহরটির পশ্চিমাংশে অবস্থিত পালমিরা দুর্গ পুনরুদ্ধার করেছে এবং দক্ষিণ-পশ্চিমে প্রাসাদতুল্য একটি ভবনের দখল নিয়েছে। ডিসেম্বরে আইএসের জঙ্গিরা পালমিরা পুনর্দখল করে। এই শহরের প্রাচীন অংশটি ইউনেস্কো ঘোষিত বিশ্ব ঐতিহ্যের অংশ। ছয় বছর ধরে চলা সিরিয়ার গৃহযুদ্ধে আইএস দুইবার শহরটির দখল নেয়।
২০১৫ সালে আইএস প্রথমবার পালমিরা দখল করে। গত বছরের মার্চে সিরিয়ার সেনাবাহিনী আইএসকে হটিয়ে শহরটি পুনরুদ্ধার করেছিল, কিন্তু ডিসেম্বরে আলেপ্পো অভিযানে রত সিরীয় সেনাবাহিনীর ব্যস্ততার সুযোগে আইএস ফের শহরটি দখল করে নেয়। দখলদারিত্বের দুই পর্বেই পালমিরার প্রাচীন পুরাকীর্তিগুলো ধ্বংস করেছে জঙ্গি গোষ্ঠীটি। এই ধ্বংসযজ্ঞকে যুদ্ধাপরাধ অভিহিত করে এর নিন্দা জানিয়েছে জাতিসংঘ।
সিরীয় সামরিক বাহিনীর একটি সূত্র জানিয়েছে,  “খুব শিগগিরই সেনাবাহিনী শহরটিতে প্রবেশ করতে শুরু করবে।” সিরীয় সেনাবাহিনী জানিয়েছে, তারা পালমিরা শহর থেকে কয়েক কিলোমিটার পশ্চিমে ‘পালমিরা ত্রিভুজ’ নামে পরিচিত এলাকাটির নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে।  সম্প্রতি রাশিয়ার বিমান হামলার ছত্রছায়ায় সিরীয় সেনাবাহিনী দ্রুতগতিতে পালমিরার দিকে এগিয়ে যায়। গৃহযুদ্ধের পর্যবেক্ষক ব্রিটিশ-ভিত্তিক সংগঠন সিরিয়ান অবজারভেটরি ফর হিউম্যান রাইটস জানিয়েছে, সরকারি বাহিনী ‘যেকোনো মূহুর্তে’ পালমিরায় ঝটিকা অভিযান চালাবে বলে অনুমান করা হচ্ছে। রাশিয়া জানিয়েছে, তাদের বিমানগুলো সিরীয় সেনাবাহিনীর পালমিরা অভিযানে সহায়তা করছে। রয়টার্স।

Leave a comment

উপরে