কলাপাড়ায় ভ্যানচালকের স্ত্রী মুন্নি’র পাশে দাঁড়ালেন ডাঃ লেলীন

প্রকাশিত: ৩০-০৯-২০২১, সময়: ০৬:২৭ |
Share This

কলাপাড়া প্রতিনিধ : কলাপাড়ার নীলগঞ্জ আবাসনের ভ্যানচালক মো. আল-আমিনের স্ত্রী মুন্নি বেগম (২০) রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) রাতে হঠাৎ-ই প্রসব বেদনা ওঠে। কিন্তুু টাকার অভাবে স্ত্রীকে রাতে হাসপাতাল কিংবা ক্লিনিকে নিতে পারেনি স্বামী। সোমবার (২৮ সেপ্টেম্বর) সকালে স্থানীয়দের সহযোগিতায় গর্ভবতী ওই মুন্নি বেগমকে কলাপাড়া পৌর শহরের আলেয়া ক্লিনিকে ডাঃ আব্দুল রহিম কে দেখায়। তিনি গর্ভবতী মুন্নি’কে বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করে সিজার করার তাগিদ দেন। আলেয়া ক্লিনিকে সিজার করাতে কমপক্ষে ১৮ হাজার টাকা লাগবে বলে জানিয়ে দেয়। এমন খবরে হতাশ হয়ে পড়ে অসহায় মুন্নি’র পরিবারটি। যেন আকাশ ভেঙ্গে পড়েছে মাথার উপর।এমন সময় রোগী’র সাথে আসা প্রতিবেশী রিনা বেগম একই নামের আরেক রিনা বেগম, এ দুইজন কলাপাড়া সাংবাদিক ফোরামের সাধারণ সম্পাদক এস এম আলমগীর হোসেনকে ফোন করে ওই অসহায় পরিবারটির পাশে দাঁড়ানোর জন্য অনুরোধ করেন। আলমগীর হোসেন তাদের তাৎক্ষণিক কলাপাড়া হাসপাতাল আসতে বলেন। এবং তারা হাসপাতালে আসেন। রোগী নিয়ে আলমগীর হোসেন কলাপাড়া হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক ডা. জে এইচ খান লেলীনের কাছে নিয়ে গেলে তিনি ব্যবস্থাপত্র দেখে তিনিও সিজার করার পরামর্শ দেন। সংবাদকর্মী আলমগীর হোসেন মুন্নিকে সরকারিভাবে সিজার করার অনুরোধ জানান। কিন্তুু কলাপাড়া হাসপাতালে অ্যানেসথেসিয়া ডাক্তার কলাপাড়ার বাহিরে ট্রেনিংয়ে আছে। তিনি দু’একদিন পরে আসবেন। রাতেই মুন্নিকে সিজার করাতে হবে। সংবাদকর্মী আলমগীর হোসেন ডা. জে এইচ খান লেলীনের কাছে মুন্নি’র পরিবারের দুর্দশার কথা তুলে ধরলে কলাপাড়া ক্লিনিকে সিজারিয়ান অপারেশন করার ব্যবস্থা করে দেন। মানবিক আচরনের মূল্যবোধের তাগিদে কোন রকম টাকা পয়সা ছাড়াই সফলভাবে সিজার সম্পন্ন করেন। প্রসূতী মায়ের কন্যা সন্তান জন্ম নেয়। নবজাতক শিশু ও মা দু’জনেই বর্তমানে সুস্থ রয়েছে।মুন্নি’র পাশে দাঁড়ানোর জন্য ডা. জে এইচ খান লেলীন, নার্স, সংবাদকর্মী এস এম আলমগীর হোসেন, প্রতিবেশী রিনা বেগম একই নামের আরেক রিনা বেগম সহ সকলের প্রতি কৃতজ্ঞতা জানিয়েছেন মুন্নি’র পরিবার।উল্লেখ, উপজেলার নীলগঞ্জ আবাসনের দিনমজুর ইসমাইল এর মেয়ে মুন্নি বেগম (২০) এর সাথে নীলগঞ্জ ইউনিয়নের ভ্যানচালক মো. আলমিনের সাথে প্রায় দুই বছর আগে বিয়ে হয়। বিয়ে’র পর থেকেই ভ্যানচালক মো. আলমিনের শ্বশুরবাড়ি থেকে ভ্যান চালিয়ে সংসার চালিয়ে আসছে।

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে