সালথায় মহিলার শরীরে রফিক বাহিনীর মরিচ থেরাপী হাসপাতালে কাৎরাচ্ছে চায়না বেগম

বুলবুল,ফরিদপুর সংবাদদং : ফরিদপুরের সালথা উপজেলার উজিরপুর গ্রামে রফিক বাহিনীর তান্ডবে হাসপাতালের বিছানায় কৎরাচ্ছে জাফর শেখের স্ত্রী চায়না বেগম। সর্বাঙ্গে শুকনা মরিচের গুড়া নিক্ষেপ ও উপুর্যপরি আঘাতের ফলে ক্ষত-বিক্ষত যন্ত্রনাহতকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। গত ১৩ জুলাই সন্ধ্যায় এক লোমহর্ষক ঘটনার জন্ম হয়, অতর্কিতনহামলায় বসতবাড়ি ভাংচুর সহ স্ব-দলবলে ঘরে ঢুকে মহিলাকে উলঙ্গ করে সর্ব রগে মরিচের গুড়া নিক্ষেপ করার মতো ন্যক্কারজনক ঘটনা ঘটেছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। জানাযায় উপজেলার যদুনন্দি ইউনিয়নের মৃত মেছের মোল্যার ছেলে পুলিশ এ্যাসল্ট ও দ্রুত বিচার আইনের মামলা সহ ৭ মামলার আসামি দংগাবাজ রফিক মোল্যা গত ৮ জুলাই আটক হওয়ার পর আদালতে সোপর্দ করা হলে পুলিশ রিমান্ডের আবেদন করে। এ সংবাদে উপজেলার যদুনন্দি ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি হুমায়ন খাঁ, ইউনিয়নের খারদিয়া গ্রামের ইলিয়াছ কাজি, নূরু মোল্যা, টুকু ঠাকুর, হারুন মোল্যা, উজিরপুর গ্রামের ঈসমাইল চকিদার, ইউনূছ মোল্যা, সহিদ ফকির গংদের নেতৃত্বে ১৩ জুলাই দিবাগত সন্ধ্যায় জাফর শেখের বাড়িতে এক সশস্ত্র হামলা চালানো হয়। পুরুষ শূন্য বাড়িতে জাফর শেখের স্ত্রী চায়না বেগমের ঘরে ঢুকে তাঁকে বেধড়ক মারপিট সহ বিবস্ত্র করে সর্বাঙ্গে শুকনা মরিচের গুড়া ছিটিয়ে দেয়া হয় বলে অভিযোগ করেন প্রত্যক্ষদর্শী সিরাজ মেম্বারের স্ত্রীসহ পাশ^বর্তী মহিলারা। হামলাকারীরা চলে যাওয়ার সময় বলেযায় রফিক মোল্যাকে রিমাইন্ড থেরাপি দিলে আমরা তোমাদেরকে শুকনা মরিচের গুড়া থেরাপি দেব। পুরুষ শূন্য বাড়িতে হামরা চালানোর ব্যপারে প্রত্যক্ষ দর্শী এবং ভুক্তভোগী শামছেল বিশ^াসের স্ত্রী হাসি বেগম ও সিরাজ মেম্বারের স্ত্রী জানান, খারদিয়া এলাকার শামছু মোল্যা, অহিদ শেখ, নাজমুল ও উজিরপুর এলাকার সাজ্জাদ মিয়া, আবু ছালে ফকির, মোরাদ শরীফ, জিলু শেখ, সাহেব শেখ, কুদ্দুছ শেখ, জসীম শেখ, মফি শেখ, লুৎফার মোল্যা, সহিদ সেক, ওমর সেক, নূর ইসলাম লস্কর ও পাশ^বর্তী বোয়ালমারী উপজেলার পরমোসেন্দী গ্রামের ছরো শেখ গংরা দেশীয় অস্ত্র-শস্ত্রে সজ্জিত হয়ে এসব বাড়িতে হামলা চালায় এবং মহিলাদের মারধর করে চায়ঢনা বেগমকে বিবস্ত্র করে তাঁর সমস্ত শরীরে শুকনা মরিচের গুড়া ঢেলে দেওয়া হয়। গতকাল ১৪ নভেম্বর এলাকায় মারমুখি অবস্থা বহাল ছিলো। আজ ১৫ জুলাই সকাল ৭ টা থেকে হুমায়ন খাঁ গংদের নেতৃত্বে খারদিয়ার আলমগীর মিয়ার বাড়িতে স্বশস্ত্র হামলা চালানোর মহড়া চলছিলো। পুলিশ প্রশাসন খবর পেয়ে ফরিদপুর জেলা পুলিশ লাইন থেকে শতাধিক ফোর্স উত্তপ্ত এলাকায় পাঠালে জামায়েত ছত্রভঙ্গ হয়ে যায়। এলাকায় ত্রাসের রাজত্ব কায়েম থাকবার ফলে ইউপি সদস্য ইমরুল খান, সিরাজ বিশ^াস সহ কমপক্ষে ৩০ টি পরিবারের লোকজন বাড়িঘর ছাড়া বলে ভুক্তভোগীরা জানান। এদিকে খারদিয়া গ্রামের আলমগীর মিয়া অভিযোগ করে বলেন, উল্লেখিত হুমায়ন খাঁ, রফিক মোল্যা, টুকু ঠাকুর গংদের অত্যাচারে অনেক মানুষ বাড়িতে বসবাস করতে পারছেনা। এরা নিজেদের দলে ভিড়ানোর জন্য হুমকি-ধমকি সহ চাঁদা দাবিকরে সময় বেঁধে দিচ্ছে এবং মেরে ফেলার হুমকি দিচ্ছে। স্থানীয় থানায় পিটিশন হয়েছে বলে জানান। তিনি তদন্তপূর্বক অভিযুক্তদের অনতি বিলম্বে আটক করে শাস্তির দাবিও করেন। শেষ খবর পাওয়া পর্যন্ত এলাকার শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় রাখতে পুলিশী নজরদারি বাড়ানো হয়েছে। এসবি, এনএসআই সহ গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা এলাকা পরিদর্শন করেছেন এবং দাংগা সৃষ্টিকারীদের তালিকা প্রস্তত করছেন বলেও জানাযায়।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Comments are closed.

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক ও প্রকাশক : ডাঃ আওরঙ্গজেব কামাল
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : ইজ্ঞি: মোঃ হোসেন ভূইয়া।
বার্তা সম্পাদক : জহিরুল ইসলাম লিটন
যুগ্ন-সম্পাদক : শামীম আহম্মেদ

ঢাকা অফিস : জীবন বীমা টাওয়ার,১০ দিলকুশা বানিজ্যিক (১০ তলা) এলাকা,ঢাকা-১০০০
মোবাইলঃ ০১৭১৬-১৮৪৪১১,০১৯৪৪২৩৮৭৩৮

E-mail:dnanewsbd@gmail.com

ওয়েবসাইট নির্মানে: আইটি হাউজ বাংলাদেশ