নোয়াখালীতে করোনায় নতুন শনাক্ত ২৩ জনসহ জেলায় আক্রান্ত ৪৭৯,মৃত্যু-১০

মোস্তফা মহসিন,(নোয়াখালী) : নোয়াখালীতে লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা।মানা হচ্ছেনা লকডাউন ও সামাজিক দৃরত্ব বজায় রাখার নিয়ম। গত ২৪ ঘন্টায় ১২৫টি নমুনা পরীক্ষায় নতুন করে আরও ২৩ জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এনিয়ে জেলায় এপর্যন্ত ৪৭৯ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। জেলায় মারা গেছে এ পর্যন্ত ১০ জন। এ পর্যন্ত ৪৩ জন সুস্থ হয়ে বাড়ী ফিরে গেছেন। জেলার প্রধান বানিজ্য কেন্দ্র চৌমুহনীসহ বিভিন্ন হাটবাজারে বেড়েছে জনসমাগম।বিশেষ করে জেলার গ্রামাঞ্চলের হাটবাজারগুলোতে জনসমাগম বেশী। নোয়াখালীতে সবচেয়ে বেশী করোনা ঝুঁকিতে রয়েছে জেলার প্রধান বানিজ্য কেন্দ্র চৌমুহনী শহরসহ বেগমগঞ্জ উপজেলা। এ উপজেলায় আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা ২২৬জন। যার মধ্যে প্রায় ৭৫ শতাংশই চৌমুহনী পৌরসভার বাসিন্দাএবং নতুন শনাক্ত হওয়া ব্যাক্তিদের বেশীর ভাগই চৌমুহনী বাজারের ব্যাবসায়ী। করোনা ভাইরাসের সংক্রমন হার বেড়ে যাওয়ায় জেলাজুড়ে দ্বিতীয় দফার কঠোর লকডাউন চলছে। এর মধ্যে চৌমুহনী শহরকে রেডজোন হিসেবে ঘোষনা করেছে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন। এদিকে স্বাস্থ্যবিধি না মেনে মাস্ক ছাড়াই রাস্তাঘাটে ও হাটবাজারে চলাচল করছে অনেকেই। শুক্রবার সকালে জেলা সিভিল সার্জন অফিস ও তথ্য অফিস সৃত্র জানায়, নোয়াখালীতে গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে আরও ২৩জনের করোনা শনাক্ত হয়েছে। এনিয়ে জেলায় ৪৭৯ জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয়। আক্রান্তদের মধ্যে পুলিশ, সরকারি কর্মকর্তা-কর্মচারী ,ব্যাবসায়ীসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার মানুষ রয়েছে।যার মধ্যে জেলায় মারা গেছে এ পর্যন্ত ১০ জন। জেলায় আক্রান্ত ৪৭৯ জনের মধ্যে বেগমগঞ্জে ২২৬ জন, সদরে ৮০ জন, সোনাইমুড়িতে ২৮জন, হাতিয়ায় ৬ জন, সেনবাগে ২১ জন, চাটখিলে ৩১ জন, কবিরহাটে ৬২ জন, কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় ৮জন ও সুবর্নচর উপজেলায় ১৭জন। এ পর্যন্ত জেলায় মারা গেছেন ১০ জন, সুস্থ হয়ে বাড়ী ফিরে গেছেন ৪৩ জন। জেলা সিভিল সার্জন কর্মকর্তা ডা. মোমিনুর রহমান শুক্রবার সকালে জানান, শনাক্ত হওয়া প্রায় সবাই জ্বর,সর্দি ও কাশিতে ভুগছিল। নমুনা সংগ্রহ করে নোয়াখালী আবদুল মালেক উকিল মেডিকেল কলেজ ও নোয়াখালী বিঞ্জান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় ল্যাবে পাঠানো নমুনার মধ্যে ১২৫টি নমুনা পরীক্ষার ফলাফলে গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে ২৩জনের শরীরে করোনা শনাক্ত হয় এনিয়ে জেলায় মোট ৪৭৯ জনের করোনা রিপোর্ট পজেটিভ আসে। আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন আছেন ৪৩০ জন।বেগমগঞ্জ উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যান কর্মকর্তা অশিম কুমার দাশ জানান, গত ২৪ ঘন্টায় নতুন করে শনাক্ত না হলেও বেগমগঞ্জ উপজেলায় করোনা সংক্রমিত রোগীর সংখ্যা এখন ২২৬জন। যার মধ্যে প্রায় ৭৫ শতাংশই চৌমুহনী পৌরসভার বাসিন্দাএবং শনাক্ত হওয়া ব্যাক্তিদের বেশীর ভাগই চৌমুহনী বাজারের ব্যবসায়ী।এটা খুবই উদ্বেগ ও আতংকের বিষয় বলে উল্লেখ করেন ওই স্বাস্থ্য কর্মকর্তা।বেগমগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুব আলম বলেন, সনাক্তদের মধ্যে উপজেলা প্রশাসনের কর্মরত চতুর্থ শ্রেনীর এক কর্মচারী ও বেগমগঞ্জ মডেল থানার এক পুলিশ সদস্য রয়েছে।বেগমগঞ্জ মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুন উর রশিদ চৌধুরী জানান, চৌমুহনী পুলিশ ফাঁড়ির কর্মরত ২০জন সদস্যের মধ্যে ১০জন পুলিশ সদস্যই করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন।সংক্রমন ছড়িয়ে পড়ায় বর্তমানে চৌমুহনী পুলিশ ফাঁড়ির কার্যক্রম সাময়িক বন্ধ রেখে আপাতত বেগমগঞ্জ মডেল থানা থেকে কার্যক্রম তদারকি করা হচ্ছে।আক্রান্ত পুলিশ সদস্যদের বিভিন্ন ভাবে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে।

Comments

comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Comments are closed.

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক ও প্রকাশক : ডাঃ আওরঙ্গজেব কামাল
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : ইজ্ঞি: মোঃ হোসেন ভূইয়া।
বার্তা সম্পাদক : জহিরুল ইসলাম লিটন
যুগ্ন-সম্পাদক : শামীম আহম্মেদ

ঢাকা অফিস : জীবন বীমা টাওয়ার,১০ দিলকুশা বানিজ্যিক (১০ তলা) এলাকা,ঢাকা-১০০০
মোবাইলঃ ০১৭১৬-১৮৪৪১১,০১৯৪৪২৩৮৭৩৮

E-mail:dnanewsbd@gmail.com

ওয়েবসাইট নির্মানে: আইটি হাউজ বাংলাদেশ