আশ্রয় কেন্দ্র না থাকায় নিরাপত্তাহীনতায় লক্ষাধিক মানুষ

কামরুল ইসলাম প্রতিনিধিঃ পিরোজপুরের জেলার ইন্দুরকানীতে আশ্রয় কেন্দ্র না থাকায় নিরাপত্তাহীনতায় লক্ষাধিক মানুষ ইন্দুরকানী, (পিরোজপুর) সংবাদদাতা : উপকুলীয় জেলা পিরোজপুরের ইন্দুরকানীতে লক্ষাধিক মানুষ ঘূর্নিঝড় আশ্রয় কেন্দ্রের অভাবে নিরাপত্তাহীনতায় ভূগছে । এ উপজেলার বাসিন্দাদের জন্য নির্দিষ্ট কোন ঘূর্নিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র নাই। তিন দিকে নদী বেষ্টিত এ উপজেলার বাসিন্দারা ঝড় এলেই আতংকে থাকে। নদীর কাছে আশ্রয় নেবার মত কোন বড় ভবন বা ঘূর্নিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র না থাকায় ঝড় এলে প্রায়ই দুর্ঘটনা ঘটে থাকে। তবে উপজেলায় স্কুল কাম সেল্টার ঘূর্নিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র ১২ টি ৭টি দ্বিতলা ভবন সহ মোট ১৯টি কে আশ্রয় কেন্দ্র হিসেবে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। এগুলোতে বিদ্যালয়ের ক্লাস চলে বলে এর চাবি থাকে সংশ্লিষ্ট স্কুলের শিক্ষকদের কাছে । সরেজমিনে গেলে দেখা যায়,নদীর পানি বৃদ্ধি পেলেই চরএলাকায় ও নদীর আশে পাশের মানুষ আতংকে দিন কাটায়। উপজেলার,টগরা,বালিপড়া, ইন্দুরকানী, ভবানীপুর, কালাইয়া, সাউদখালী, খোলপটুয়া, চাড়াখালী, চরবলেশরসহ গ্রামগুলুতে পর্যাপ্ত আশ্রয় কেন্দ্র না থাকায় এলাকার মানুষ নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছে। এদের মধ্যে নদী পাশ^বর্তি থাকায় কালাইয়া গ্রামটি সবচেয়ে বেশি ঝুকিপূর্ন সত্বেও এখানে নেই কোন আশ্রায় কেন্দ্র। ইন্দুরকানী উপজেলা চেয়ারম্যান এ্যাডঃ এম মতিউর রহমান জানান, এ উপজেলায় যেভাবে ঘনবসতিপুর্ন তাতে প্রতিটি গ্রামেই কমপক্ষে ১টি ঘুর্নিঝড় আশ্রয় কেন্দ্র প্রয়োজন । উল্লেখ্য, ২০০৭ সালের ১৫ নভেম্বর ঘুর্নিঝড় সিডরে উপজেলার প্রায় শতাধিক লোক মারা গেছে এবং এখনো অনেক লোক নিখোঁজ রয়েছে ।
উপজেলা নির্বাহী অফিসার হোসাইন মুহাম্মদ আল মুজাহিদ জানান,ঘুর্ণিঝড় আম্ফান কে ঘিরে এই উপজেলায় প্রস্তুতিমুলক সকল কার্যক্রম চলমান আছে । উপকূলিয়ও এলাকার স্কুল কাম-সাইক্লোন সেল্টারকে আশ্রায় কেন্দ্রের জন্য প্রস্তুত রাখা হয়েছে ।

Comments

comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Comments are closed.

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক ও প্রকাশক : ডাঃ আওরঙ্গজেব কামাল
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : ইজ্ঞি: মোঃ হোসেন ভূইয়া।
বার্তা সম্পাদক : জহিরুল ইসলাম লিটন
যুগ্ন-সম্পাদক : শামীম আহম্মেদ

ঢাকা অফিস : জীবন বীমা টাওয়ার,১০ দিলকুশা বানিজ্যিক (১০ তলা) এলাকা,ঢাকা-১০০০
মোবাইলঃ ০১৭১৬-১৮৪৪১১,০১৯৪৪২৩৮৭৩৮

E-mail:dnanewsbd@gmail.com

ওয়েবসাইট নির্মানে: আইটি হাউজ বাংলাদেশ