সারাদেশে করোনা উপসর্গ নিয়ে ১৪ জনের মৃত্যু

আওরঙ্গজেব কামাল : সারা দেশের ১২ জেলায় করোনা উপসর্গ নিয়ে ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এদের মধ্যে সিলেটে শিশু ও বৃদ্ধ, চাঁদপুরে দুই যুবক, চট্টগ্রামে যুবক, ফরিদপুরের নগরকান্দায় নারী, কিশোরগঞ্জে শিশু, জামালপুরের বকশীগঞ্জে এক ব্যক্তি ও পটুয়াখালীতে নারী, টাঙ্গাইলে গৃহবধূ, বগুড়ায় এক ব্যক্তি, হবিগঞ্জে কিশোরী, যশোর ও বাগেরহাটে এক বৃদ্ধ মারা যান। প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী সিলেটে নতুন করে আরও দু’জনের শরীরে করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। তারা গোয়াইনঘাট ও জৈন্তাপুর উপজেলার বাসিন্দা। করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে বৃহস্পতিবার নগরীর উপশহরের বাসিন্দা ১০ বছর বয়সী এক মেয়ের মৃত্যু হয়েছে।শিশুটির নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। শিশুটি কয়েকদিন ধরে জ্বর, সর্দি, কাশিতে ভুগছিল। বৃহস্পতিবার সকালে তার শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে স্বজনরা তাকে সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। ডাক্তাররা শিশুটির করোনার লক্ষণ দেখে সিলেট শামসুদ্দিন আহমদ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পরামর্শ দেন।কিন্তু শিশুর স্বজনরা তাকে ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগে নিয়ে যান। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করেন। স্বাস্থ্য অধিদফতর সিলেট বিভাগের উপপরিচালক ডা. আনিসুর রহমান এ তথ্য জানান। এ ছাড়া গোলাপগঞ্জে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে এক বৃদ্ধার মৃত্যু হয়েছে। বুধবার উপজেলার ঢাকাদক্ষিণ ইউনিয়নের উত্তর রায়গড় গ্রামে নিজ বাড়িতে মৃত্যুর পর তার বাড়িটি করা হয়েছে লকডাউন।চাঁদপুরে করোনা উপসর্গ নিয়ে দুই যুবক মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার মারা যাওয়া ওই দু’জনের মধ্যে একজনের বাড়ি সদর উপজেলার লক্ষ্মীপুর ইউনিয়নে এবং আরেকজনের বাড়ি মতলব উত্তর উপজেলার দুর্গাপুর ইউনিয়নে।তাদের দু’জনেরই নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন ডা. মো. সাখাওয়াত উল্যাহ। করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে এক যুবক বৃহস্পতিবার সকালে চট্টগ্রাম জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশনে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা গেছেন বলে জানিয়েছেন এই হাসপাতালের তত্ত্বাবধায়ক ডা. অসীম কুমার। তিনি বলেন, ওই যুবকের বাড়ি চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার চেচুরিয়া গ্রামে।বুধবার তিনি জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশনে ভর্তি হন। একইদিন তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য বিআইটিআইডিতে পাঠানো হয়। তিনি আরও জানান, জেনারেল হাসপাতালের আইসোলেশনে ২২ জন রয়েছেন। এর মধ্যে ১৭ জনের শরীরে করোনার পজিটিভ ধরা পড়েছে। নগরকান্দায় করোনা উপসর্গ নিয়ে এক নারীর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার ভোররাতে উপজেলার চরযশোরদী ইউনিয়নের বানেশ্বরদী গ্রামে মারা যান তিনি। তিনি কয়েকদিন ধরে সর্দি, কাশি, জ্বর ও ডায়রিয়ায় ভুগছিলেন।এ ছাড়াও তার স্বামী ও ছেলে অসুস্থ রয়েছে বলে জানা গেছে। উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. ফরহাদ হোসেন বলেন, মেডিকেল টিম পাঠিয়ে তাদের নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। বাড়ির অন্য সদস্যদের হোম কোয়ারেন্টিনে রাখা হয়েছে।কিশোরগঞ্জের দানাপাটুলি গ্রামে নারায়ণগঞ্জ ফেরত এক ব্যক্তির সপ্তম শ্রেণিপড়ুয়া মেয়ে বুধবার রাতে করোনা উপসর্গ নিয়ে মারা গেছে। তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছে। বকশীগঞ্জে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে একজনের মৃত্যু হয়েছে। বুধবার রাতে শ্বাসকষ্ট, জ্বর ও সর্দি নিয়ে ওই ব্যক্তি নিজ বাড়িতে মারা যান। তার বাড়ি বকশীগঞ্জ সদর ইউনিয়নের সূর্যনগর গ্রামে।এ ঘটনায় ওই রাতে ওই বাড়ি লকডাউন করেন ইউএনও আ স ম জামশেদ খোন্দকার। সখীপুরে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে এক গৃহবধূর মৃত্যু হয়েছে। বুধবার রাতে উপজেলার কালিয়া উত্তরপাড়া গ্রামে বাবার বাড়িতে তার মৃত্যু হয়। মৃত্যুর আগে সোনিয়ার জ্বর, সর্দি, কাশি, গলাব্যথা ও পাতলা পায়খানা ছিল।উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. আবদুস সোবহান জানান, ওই গৃহবধূর নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে। ওই বাড়ির লোকজনকে হোম কোয়ারেন্টিনে থাকতে বলা হয়েছে। পটুয়াখালী ২৫০ শয্যা হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে ভর্তি থাকা এক নারী মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার ভোররাতে তার মৃত্যু হয়। বুধবার ওই নারীর নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআরে পাঠিয়েছে পটুয়াখালী স্বাস্থ্য বিভাগ।গত ১৩ এপ্রিল শ্বাসকষ্ট উপসর্গ নিয়ে তিনি হাসপাতালে ভর্তি হয়েছিলেন। কোভিড-১৯ নির্দেশনা মেনে তার দাফন সম্পন্ন করা হয়েছে বলে নিশ্চিত করেছেন সিভিল সার্জন ডাক্তার মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর আলম।
যশোর ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে কোয়ারেন্টিনে থাকা ভারত ফেরত এক কিডনি রোগীর মৃত্যু হয়েছে। করোনা আক্রান্ত সন্দেহে বেসরকারি হাসপাতাল ডায়ালিসিস করতে রাজি না হওয়ায় তার মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে।বৃহস্পতিবার ভোরে যশোর জেনারেল হাসপাতালের চিকিৎসক ওবায়দুল কাদির উজ্জ্বল তাকে মৃত ঘোষণা করেন। মারা যাওয়া ওই ব্যক্তি চৌগাছা উপজেলার বাসিন্দা ছিলেন। বাগেরহাটে সদর হাসপাতালের আইসোলেশনে ভর্তি এক বৃদ্ধের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার পর তিনি মারা যান। এর আগে দুপুর ২টায় হার্ট, লিভার ও শ্বাসকষ্ট নিয়ে তিনি হাসপাতালে আসেন।শ্বাসকষ্ট থাকায় তাকে চিকিৎসকরা আইসোলেশনে রাখার নির্দেশ দেন। মারা যাওয়া ওই ব্যক্তির বাড়ি সদর উপজেলার বারুইপাড়া গ্রামের রায়পাড়ায়। বাগেরহাটের সিভিল সার্জন ডা. কেএম হুমায়ুন কবির এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন। মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আইসোলেশন ইউনিটে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে ভর্তি হওয়া এক রিকশাচালক মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যার দিকে ভর্তি হওয়ার পর চিকিৎসাধীন অবস্থায় রাত ৯টার দিকে মারা যান।বগুড়ার মোহাম্মদ আলী হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসা কর্মকর্তা ডা. শফিক আমিন কাজল এর সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। মারা যাওয়া ওই ব্যক্তির বাড়ি বগুড়া শহরের সাবগ্রাম চান্দুপাড়ায়। মাধবপুরে করোনাভাইরাসের উপসর্গ নিয়ে এক কিশোরীর মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবার বিকালে তার লাশ দাফন করা হয়েছে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে তার পরিবারের সদস্যদের হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নির্দেশ দিয়েছে।মাধবপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. ইশতিয়াক আল মামুন জানান, ওই উপজেলার বহরা ইউনিয়নের পানিহাতা গ্রামের ওই মেয়ে গত ১০-১২ দিন ধরে জ্বর ও শ্বাসকষ্টে ভুগছিল।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Comments are closed.

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক ও প্রকাশক : ডাঃ আওরঙ্গজেব কামাল
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : ইজ্ঞি: মোঃ হোসেন ভূইয়া।
বার্তা সম্পাদক : জহিরুল ইসলাম লিটন
যুগ্ন-সম্পাদক : শামীম আহম্মেদ

ঢাকা অফিস : জীবন বীমা টাওয়ার,১০ দিলকুশা বানিজ্যিক (১০ তলা) এলাকা,ঢাকা-১০০০
মোবাইলঃ ০১৭১৬-১৮৪৪১১,০১৯৪৪২৩৮৭৩৮

E-mail:dnanewsbd@gmail.com

ওয়েবসাইট নির্মানে: আইটি হাউজ বাংলাদেশ