সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লালকে সুরক্ষা দিতে দুদকের নির্দেশের পর এবার ওসি ও শিক্ষা কর্মকর্তাকে নির্দেশ

মীর রাজিবুল হাসান নাজমূল : সরকারী অর্থ আত্মসাৎ এবং দুর্নীতির সুনির্দিষ্ট তথ্য সংগ্রহ করে অনুসন্ধান মূলক বস্তুনিষ্ঠ সংবাদ প্রকাশসহ জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশ (সুরক্ষা প্রদান) আইন অনুযায়ী উপযুক্ত কর্তৃপক্ষের নিকট জনস্বার্থে অভিযোগ দায়েরের ঘটনায় দুর্নীতি দমন কমিশন(দুদক) ও প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগীয় পৃথক অনুসন্ধান এবং তদন্তে অভিযোগ প্রমানীত হওয়ায় সরকারী অর্থ আত্মসাৎকারীদের বিরুদ্ধে বিভাগীয় এবং ফৌজদারি মামলা দায়ের হয়।
তথ্য অধিকার আইন ২০০৯ প্রয়োগ করে তথ্য প্রাপ্তির আবেদনের মাধ্যমে সরকারি অর্থের অনিয়মিত ও অননুমোদিত ব্যয়,সরকারী সম্পদের অব্যবস্থাপনা,সরকারী অর্থ আত্মসাৎ,ক্ষমতার অপব্যবহার,ফৌজদারী অপরাধ,বেআইনী,অবৈধ কার্যসম্পাদন,জালজালিয়াতি এবং দুর্নীতির তথ্য সংগ্রহ ও বিশ্লেষণ করে জনস্বার্থে দুর্নীতি দমন কমিশন ও প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগীয় তদন্ত পূর্বক আইনগত ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশ করার কারনে ষড়যন্ত্র ও চক্রান্তের মাধ্যমে অভিযুক্ত ব্যক্তিরা পরষ্পরক যোগসাজশে রাজনৈতিক প্রভাব বিস্তার করে সরকারি অর্থ আত্মসাৎ,বিভিন্ন প্রকার দুর্নীতি এবং অনিয়মের অভিযোগের দায় থেকে বাঁচতে পরষ্পরের নিকট থেকে চাঁদা তুলে জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশকারী সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লাল এবং তার সহকর্মী সাংবাদিক মোঃ নিয়ামুল হাসান নিয়াজ এর বিরুদ্ধে জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশ সুরক্ষা প্রদান আইন ২০১১ এর ধারা ৫ এর উপধারা(২)(৩),৯(১)(২)এবং বিধিমালা ২০১৭ এর উপধারা (২)(৩)এর সুস্পষ্ট লংঘন করে হয়রানী, অর্থদন্ড এবং গুরুত্বর ক্ষতি সাধনের অসৎ উদ্দেশ্যে সরকারী কর্মচারী (আচরন) বিধিমালা, ১৯৭৯ (দি গভার্ণমেন্ট সার্ভেন্টস(কন্ডাক্ট) রুলস,1979) এর বিধি ২৭ ও ২৮ এর লংঙ্ঘন করে সরকারের পূর্বানুমোদন ব্যতিরেকে একই ঘটনার বর্ননায় পৃথক স্থানে ঘটনাস্থল দেখিয়ে শিক্ষকদের মধ্য থেকে ভিন্ন ভিন্ন ব্যক্তি বাদী ও স্বাক্ষী হয়ে বিভিন্ন তারিখ ও সময়ে বরগুনা সদর উপজেলার গুদিঘাটা ক্লাষ্টারের সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার মনির হোসেন এবং অগ্রনী ব্যাংক,বরগুনা শাখার কতিপয় সরকারী অর্থ আত্মসাৎকারীদের যোগসাজশ ও নেতৃত্বে শিক্ষকদের নিকট থেকে চাঁদা তুলে বিভিন্ন বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের স্বাক্ষী সাজিয়ে ১৪ নং পূর্ব গুদিঘাটা নুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ভারপ্রাপ্ত আবুল হোসেন,কোরক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আব্দুল আলিম লিটন,চর চরগ গাছিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে মোঃ আসলাম হোসেন পিতা মৃত মজিবুর রহমান,সাং পশ্চিম বরগুনা পৌরসভা,সহকারী শিক্ষক পাতাকাটা দরবার শরিফ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মোঃ জাকির হোসেন পিতা আলহাজ্ব আবদুর রহিম জমাদ্দার সাং উত্তর লাকুরতলা ২ নং গৌরীচন্না ইউপি।প্রধান শিক্ষক উত্তর লাকুরতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,মোঃ আব্দুল আজিজ ফরাজী পিতা মৃত হোসাইন আলী ফরাজী,সাং কুমড়াখালী ১ নং বদরখালী ইউনিয়ন।প্রধান শিক্ষক কেসাতঘর পল্লী মঙ্গল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,বিকাশ চন্দ্র রায় পিতা ধীরেন্দ্র নাথ রায়,সাং দক্ষিন মনসাতলী,২ নং গৌরীচন্না ইউপি।সহকারী শিক্ষক চালতাতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়।(বর্তমানে সহকারী শিক্ষক পূর্ব ধুপতি সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়),মোঃ ইদ্রিসুর রহমান খোকন,পিতা মৃত সোনা মদ্দীন,সাং ডিকেপি রোড বরগুনা পৌরসভা।প্রধান শিক্ষক দক্ষিণ আমতলী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,সুভাষ চন্দ্র রায়,পিতা মৃত সুধির চন্দ্র রায় সাং চড়ক গাছিয়া ৬ নং ইউপি।প্রধান শিক্ষক স্বনির্ভর উত্তর চরক গাছিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,জুলফিকার আলী পিতা মৃত আব্দুল কাদের সাং কলেজ রোড,বরগুনা পৌরসভা।সহকারী শিক্ষক ফুলতলা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,মোঃ জাহাঙ্গীর কবির পিতা মৃত আজাহার উদ্দীন সাং ফুল ঢলুয়া ৭ নং ইউপি।প্রধান শিক্ষক দক্ষিণ ফুল ঢলুয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়,
মোঃ নজরুল ইসলাম পিতা মৃত: আবুল হাসেম মিয়া সাং আংগারপাড়া ৪ নং কেওড়াবুনিয়া ইউনিয়ন। প্রধান শিক্ষক পুলিশ লাইন সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,মোসাঃ রাশিদা আক্তার সাং সিরাজ উদ্দিন সড়ক,বরগুনা পৌরসভা।প্রধান শিক্ষক ছোট লবনগোলা আদর্শ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,মোঃ গোলাম কবির পিতা মৃত আব্দুর রশিদ সাং পাতাকাটা (৮ নং ইউপি)।প্রধান শিক্ষক মধ্য পাতাকাটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মোসাঃ নিগাত সুলতানা প্রধান শিক্ষক,(ভারপ্রাপ্ত)২৮ নং উত্তর কুমড়াখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,শামিমা নাসরিন প্রধান শিক্ষক,(ভারপ্রাপ্ত)১৪ নং পূর্ব গুদিঘাটা নুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়,বরগুনা সদর বরগুনাদেরকে স্বাক্ষী সাজিয়ে জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশকারী সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লাল এবং তাঁর সহকর্মী সাংবাদিক মোঃ নিয়ামুল হাসান নিয়াজকে বিবাদী করে পৃথক ৩টি ফৌজদারি মামলা দায়ের করেন।এর মধ্যে প্রধান শিক্ষক ভারপ্রাপ্ত আবুল হোসেন এর দায়েরকৃত মামলাটিতে খালাস দেয়া হয়েছে।অপর ২টির সিধান্ত এখনও হয়নি।জানা গেছে,সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লাল এর অনুসন্ধান মূলক সংবাদ ও জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশের অভিযোগ আমলে নিয়ে দুর্নীতি দমন কমিশন এবং প্রাথমিক শিক্ষা বিভাগ পৃথক অনুসন্ধান এবং তদন্ত শুরু করে।অভিযোগটি দুদকের প্রধান কার্যালয়ের যাচাই-বাছাই কমিটি কর্তৃক গত ২৬/০৯/২০২১৬ তারিখ দুদক/অভি:যাচাই-বাছাই /৩৫২২০১৭/২৯১০৭ নং স্বারকে অনুসন্ধানের জন্য গ্রহন করে। অভিযোগটি অনুসন্ধানের জন্য দুদক,প্রকা,ঢাকার স্বারক নং দুদক/৬১/২০১৭/(অনুঃ ও তদন্ত-২)/বরগুনা/৩২৬১৫ তাং ৩০/১০/২০১৭, দুদক, বিকা,বরিশালের স্বারক নং ০৪.০১.০৪০০.৭৪১.০১.০১৯.১৭.১২৩ তাং ১১/০২/২০১৮ এবং দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয় পটুয়াখালীর ই/আর নং ২২/২০১৭ মূলে উপ সহকারী পরিচালক জনাব মোঃ আরিফ হোসেনকে অনুসন্ধানের দায়িত্ব দেয়া হয়। দুদকের এ তদন্তকারী কর্মকর্তা অভিযোগ অনুসন্ধানের দায়িত্ব ভার গ্রহন করে ২০১০ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত বরগুনা সদর উপজেলা শিক্ষা অফিসার সকল,সহকারী উপজেলা শিক্ষা অফিসার সকল, সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, সহকারী শিক্ষক, অগ্রনী ব্যাংক বরগুনা শাখার ব্যাবস্থাপক ও উপবৃত্তি বিতরনকারী ব্যাংক কর্মকর্তাসহ সকলকে দুদকের পটুয়াখালী কার্যালয়ে ডেকে জিজ্ঞাসাবাদ শুরু করেন। অনুসন্ধান শেষে তিনি দুর্নীতি দমন কমিশন সমন্বিত জেলা কার্যালয় পটুয়াখালীর ই/আর নং ২২/২০১৭, স্মারক নং ৮৫১ তারিখ ২৬/০৬/২০১৮ খ্রি: এর আলোকে দুর্নীতি দমন কমিশন,বিভাগীয় কার্যালয়,বরিশালের স্বারক নং ৪৯৯ তাং ০৯/০৭/২০১৮ খ্রি: এর মাধ্যমে অনুসন্ধান প্রতিবেদন দাখিল করেন। দুদক প্রধান কার্যালয়ের স্বারকনং০৪.০১.০৪০০. ৬৫৩.০১.০৬১.১৭.২৭২১৮/১০ তারিখ ৬/০৯/২০১৮ খ্রি: এর নির্দেশনার আলোকে দুদকের পটুয়াখালী কার্যালয়ের উপসহকারী পরিচালক আরিফ হোসেন বাদী হয়ে বরগুনা থানার মামলা নং ২১ জিআর নং ৫৫৯ তাং ১২/০৯/২০১৮, ধারাঃ ৪০৯/৪২০/১০৯ দঃবিঃ এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২)ধারা দায়ের করেন।মামলার আসামী ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আবুল হোসেন এবং ম্যানেজমেন্ট কমিটির সভাপতি আমির হোসেনের বিরুদ্ধে উল্লেখিত ধারায় চার্জশীট দাখিলের জন্য গত ২৬/০৮/২০১৯ খ্রিঃ তারিখ দুর্নীতি দমন কমিশন কর্তৃক মঞ্জুরী জ্ঞাপন করা হলে বরগুনা সদর উপজেলার ১৪ নং পূর্ব গুদিঘাটা নুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আবুল হোসেন ও ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি আমির হোসেন এর বিরুদ্ধে দণ্ডবিধি ৪০৯/৪২০/১০৯ এবং ১৯৪৭ সালের দুর্নীতি প্রতিরোধ আইনের ৫(২)ধারায় ভূয়া শিক্ষার্থীদের নামে উপবৃত্তি ও শ্লীপের বরাদ্দকৃত অর্থ আত্মসাতের অভিযোগে অভিযোগপত্র নং দুদক সজেকা পটুয়াখালী ০১ তাং ২২/০৯/২০১৯ বিজ্ঞ আদালতে দাখিল করা হয়েছে এবং দুর্নীতি দমন কমিশনের প্রধান কার্যালয় থেকে গত ২৯/০৮/২০১৯ খ্রিঃ তারিখ ০৪.০১.০৪০০.৬৫৩.০২.০২৩. ১৮.৩৩৫৬৮/১(৯) নং স্মারকে দুর্নীতি দমন কমিশনের মহাপরিচালক তদন্ত-১,মোঃ মোস্তাফিজুর রহমান স্বাক্ষরিত পত্রে সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লালকে জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশ (সুরক্ষা প্রদান ) আইন ২০১১ এর ধারা ৫ এর উপধারা (২),(৩) মোতাবেক প্রযোজ্য আইনগত সহায়তাসহ সুরক্ষা প্রদানের জন্য উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরগুনাকে নির্দেশ দিয়েছিল দুর্নীতি দমন কমিশন। একই সাথে নির্দেশনার অনুলিপি সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লাল সহ অবগতি ও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য জেলা প্রশাসক,বরিশাল। পরিচালক ( অনুঃ ও তদন্ত-৮)দুর্নীতি দমন কমিশন প্রধান কার্যালয়,ঢাকা। পরিচালক ( পর্যবেক্ষণ ও বিশারদ )দুর্নীতি দমন কমিশন প্রধান কার্যালয়,ঢাকা। পরিচালক,দুর্নীতি দমন কমিশন,বিভাগীয় কার্যালয়,বরিশাল। চেয়ারম্যানের একান্ত সচিব ( চেয়ারম্যানের সানুগ্রহ অবগতির জন্য)দুর্নীতি দমন কমিশন প্রধান কার্যালয়,ঢাকা। কমিশনার (অনুসন্ধান/তদন্ত) একান্ত সচিব ( কমিশন (অনুসন্ধান/তদন্ত)-এর সানুগ্রহ অবগতির জন্য দুর্নীতি দমন কমিশন প্রধান কার্যালয়,ঢাকা। উপপরিচালক, দুর্নীতি দমন কমিশন,সমন্বিত জেলা কার্যালয়,পটুয়াখালী। জনাব আরিফ হোসেন,উপসহকারী পরিচালক,দুর্নীতি দমন কমিশন,সমন্বিত জেলা কার্যালয়,পটুয়াখালীর নিকট প্রেরন করা হয়েছে।দুর্নীতি দমন কমিশনের নির্দেশনার আলোকে গত ২৬/০১/২০২০ খ্রিঃ তারিখ বরগুনাা সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কার্যালয়ের ০৫.১০.০৪২৮.০০২.০২.০০২.১৯-১০৫ নং স্মারক মূলে সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লালকে জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশ(সুরক্ষা প্রদান) আইন ২০১১ এর ধারা ৫ এর উপধারা (২)(৩) মোতাবেক প্রযোজ্য আইনগত সহায়তাসহ সুরক্ষা প্রদানের ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য অফিসার ইনচার্জ, বরগুনা সদর থানা এবং উপজেলা শিক্ষা অফিসার,বরগুনা সদর, বরগুনাকে নির্দেশ দিয়ে নির্দেশনার অনুলিপি জ্ঞাতার্থে ও কার্যার্থে সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লালসহ মহাপরিচালক (তদন্ত)দুর্নীতি দমন কমিশন, প্রধান কার্যালয়,১ সেগুনবাগিচ ঢাকা,জেলা প্রশাসক,বরগুনা,পুলিশ সুপার,বরগুনা, পরিচালক,দুর্নীতি দমন কমিশন,বিভাগীয় কার্যালয়,বরিশাল,উপপরিচালক,দুর্নীতি দমন কমিশন, সমন্বিত জেলা কার্যালয়,পটুয়াখালী, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার,বরগুনার নিকট প্রেরন করা হয়েছে।দুদকের দায়েরকৃত মামলার আসামীরা আত্মসাৎকৃত ১,৭১,১০০(এক লক্ষ একাত্তর হাজার একশত) টাকা মামলা হওয়ার পর পরই সরকারী কোষাগারে জমা দিয়ে অপরাধ স্বীকার করেছেন।
এই মামলায় ১৪ নং পূর্ব গুদিঘাটা নুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জনাব আবুল হোসেন ১২/১১/২০১৮ খ্রিঃ তারিখ বরগুনার বিজ্ঞ চীপ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ভারপ্রাপ্ত জনাব আব্বাস উদ্দীন মহোদয়ের এর আদালতে হাজির হয়ে জামিনের আবেদন করেন।আদালত আসামীর বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকায় জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরনের আদেশ দেন।এ কারনে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক জনাব আবুল হোসেনকে সাময়িক ভাবে বরখাস্ত করা হয়েছে। তথ্য অধিকার আইনের করা তথ্য প্রাপ্তির আবেদন এবং জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশের জেরে সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লালসহ কয়েক জনকে আসামী করে ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আবুল হোসেন বাদী হয়ে বরগুনা থানার মামলা নং ৪২, জিআর নং ৬৭২/২০১৬, দায়ের করেন।যা বিচারে বিজ্ঞ আদালতের আদেশ নং ২০ তারিখ ৩০/১০/২০১৮ মূলে খালাস দেয়া হয়। এরপর একই আকার ও প্রকারের বর্ননায় কোরক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব আব্দুল আলিম লিটন বাদী হয়ে বরগুনা থানার মামলা নং ১১ তাং ০৯/০৫/২০১৮, জিআর ২৮৬/১৮ দায়ের করেন।মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তার বিরুদ্ধে সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লাল ও সহকর্মী সাংবাদিক জনাব মোঃ নিয়ামুল হাসান নিয়াজ আইজিপি কমপ্লেইন্ট মনিটরিং সেলে দায়েরকৃত অভিযোগে পুলিশ হেডকোয়াটার্সের নির্দেশে বরগুনা জেলার বিভাগীয় মামলা নং ০৪/২০১৯ তাং ০৪/০৭/২০১৯ খ্রিঃ এর আলোকে বরগুনা সদর থানার এস আই নিরস্ত্র মোঃ জুয়েল হাওলাদার ( বিপি-৭৭৯৭০৩৫৪৪৪) কে সাময়িক বরখাস্ত করে বরগুনা পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়েছে। এসআই জুয়েল হাওলাদারের বিরুদ্ধে দায়েরকৃত বিভাগীয় মামলার বিচার প্রক্রিয়া ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে ।এরপর সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লাল ও সহকর্মী সাংবাদিক মোঃ নিয়ামুল হাসন নিয়াজকে আসামী করে গত ২৪/০৭/২০১৮ তারিখ বরগুনার বিজ্ঞ চীফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে চর চরক গাছিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আলমগীর হোসেন বাদী হয়ে গত ২১/০৭/২০২৮ খ্রিঃ তারিখের ঘটনা দেখিয়ে সিআর -৫৩০/১৮ (বর)নং মামলা দায়ের করেন।সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লালকে তথ্য অধিকার আইন ২০০৯ প্রয়োগ করে জনসচেতনতা সৃষ্টি,স্বচ্ছতা ও জবাবদিহিতা নিশ্চিত করনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালনের বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি স্বরুপ ১ জানুয়ারী ২০১৮ তারিখ বরগুনা জেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস থেকে বিশেষ সম্মাননা স্মারক প্রদান করা হয়েছে।১৪ নং পূর্ব গুদিঘাটা নুরিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক আবুল হোসেন,কোরক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জনাব আব্দুল আলিম লিটন এবং চর চরক গাছিয়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোঃ আলমগীর হোসেন কর্তৃক সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লাল ও সহকর্মী সাংবাদিক মোঃ নিয়ামুল হাসান নিয়াজ এর বিরুদ্ধে দায়েরকৃত ফৌজদারী মামলা ৩টি সরকারী কর্মচারী (আচর) বিধিমালার ১৯৭৯,(দি গভার্ণমেন্ট সার্ভেন্টস (কনডাক্ট) রুলস,1979 এর বিধি-২৭ এর লংঙ্ঘন করা হয়েছে ও ২৮ অনুযায়ী সরকারের অনুমতি নিয়ে দায়ের করা হয়নি এবং জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশ (সুরক্ষা প্রদান) আইন ২০১১ এর ধারা ৫ এর উপধারা (২)(৩) বিধান লংঙ্ঘন করে দায়ের করা হয়েছে যা ৯(১) ধারার লংঙ্ঘন।জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশ( সুরক্ষা প্রদান) আইন ২০১১ এর ধারা ৫ । (১) এ বলা হয়েছে, কোন তথ্য প্রকাশকারী ধারা ৪ এর উপ-ধারা (১) এর অধীন জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট কোন সঠিক তথ্য প্রকাশ করিলে, উক্ত ব্যক্তির সম্মতি ব্যতীত, তাহার পরিচিতি প্রকাশ করা যাইবে না। (২) জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট সঠিক তথ্য প্রকাশের কারণে তথ্য প্রকাশকারীর বিরুদ্ধে কোন ফৌজদারী বা দেওয়ানী মামলা বা, প্রযোজ্য ক্ষেত্রে, কোন বিভাগীয় মামলা দায়ের করা যাইবে না।(৩) তথ্য প্রকাশকারী কোন চাকুরীজীবী হইলে শুধু জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশের কারণে তাহাকে পদাবনতি, হয়রানিমূলক বদলী বা বাধ্যতামূলক অবসর প্রদান করা বা এমন কোন ব্যবস্থা গ্রহণ করা যাইবে না যাহা তাহার জন্য মানসিক, আর্থিক বা সামাজিক সুনামের জন্য ক্ষতিকর হয় বা তাহার বিরুদ্ধে অন্য কোন প্রকার বিভাগীয় ব্যবস্থা গ্রহণ ও বৈষম্যমূলক আচরণ করা যাইবে না।জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশ সুরক্ষা প্রদান আইন ২০১১ এর এর বিধিমালা ২০১৭ এর ধারা-৩ এর উপধারা- ২ এ বলা হয়েছে, কোন ব্যক্তি ধারা-৪ এর অধিন জনস্বার্থ- সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশ করিলে উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ তথ্য প্রকাশকারীর পরিচয় গোপন রাখাসহ তাহাকে প্রয়োজনীয় সকল সুরক্ষা প্রদান করিবে। ধারা-৩ এর উপধারা- ৩ এ বলা হয়েছে, জনস্বার্থ- সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশের কারনে তথ্য প্রকাশকারী যাহাতে হয়রানীর স্বীকার না হন উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ তাহা নিশ্চিত করিবে।৯। (১) কোন ব্যক্তি ধারা ৫ এর বিধান লংঘন করিলে তিনি এই আইনের অধীন অপরাধ করিয়াছেন বলিয়া গণ্য হইবে এবং উক্ত অপরাধের জন্য তিনি অন্যূন ২ (দুই) বৎসর বা অনধিক ৫ (পাঁচ) বৎসর কারাদণ্ডে বা অর্থদণ্ডে বা উভয়দণ্ডে দণ্ডিত হইবেন।(২) উপ-ধারা (১) এ উল্লিখিত অপরাধী কোন সরকারি কর্মকর্তা হইলে, তাহার বিরুদ্ধে উক্ত উপ-ধারায় উল্লিখিত দণ্ড ছাড়াও বিভাগীয় শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করিতে হইবে।সাংবাদিক আবুল হাসান বেল্লাল ও তাঁর সহকর্মী সাংবাদিক মোঃ নিয়ামুল হাসান নিয়াজ কর্তৃক সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের উপবৃত্তি,শ্লীপ বরাদ্দকৃত, রুটিন মেইনটেন্স,ক্ষুদ্র মেরামতসহ অন্যান্য খাত থেকে প্রদেয় অর্থের সর্ব্বোত্তম ব্যবহার কিংবা সঠিক খাতে ব্যয় করা হয়েছে কিনা সে বিষয়ের উপর করা কার্য্যক্রমগুলো জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট যা শিক্ষা বিভাগীয় পর্যায় এবং দুর্নীতি দমন কমিশনের তদন্তে প্রমানীত হয়েছে।স্বাক্ষর জালজালিয়াতি ও দুর্নীতির মাধ্যমে ভূয়া পিতার নাম ব্যবহার করে বরগুনা সদর উপজেলার ৭১ নং মধ্য সাহেবের হাওলা সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের( বর্তমানে বাওয়ালকর সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়)প্রধান শিক্ষক মোসাঃ শিউলী আক্তার পপি নিজের মেয়ে সামিনা ঐশি ও আকসার পিতা মোঃ আসলাম এর নাম গোপন করে ভুয়া লোক মোঃ লিটন নামের এক ব্যক্তিকে পিতা বানিয়ে স্বাক্ষর জাল ও দুর্নীতির মাধ্যমে একাধিক শিক্ষার্থীকে একই বছর বিভিন্ন শ্রেনীতে অধ্যায়নরত দেখিয়ে একাধিক শিক্ষার্থীদের নামে উপবৃত্তির টাকা এবং বিদ্যালয়ের উন্নয়ন মূলক কাজের জন্য দেয়া শ্লীপের বরাদ্ধকৃত অর্থের কাজ না করিয়ে উত্তোলন পূর্বক আত্মসাৎ করেছে।এ বিষয়ে ২০১৩ সাল থেকে ২০১৬ সাল পর্যন্ত বরগুনা সদর উপজেলার ৭১ নং মধ্য সাহেবের হাওলা সরকারী বিদ্যালয়ের ১ম শ্রেনি থেকে ৫ম শ্রেনির ছাত্র/ছাত্রীদের উপবৃত্তির তালিকা,ছাত্র/ছাত্রীদের ভর্তি খাতা, হাজিরা খাতা এবং প্রয়োজনীয় দালিলিক প্রমানদী সংযুক্ত পূর্বক গত ২৫/০৭/২০১৮খ্রিঃ তারিখ দুর্নীতি দমন কমিশনের প্রধান কার্যালয়ে জনস্বার্থ সংশ্লিষ্ট তথ্য প্রকাশ সুরক্ষা প্রদান আইন ২০১১ এবং বিধিমালা ২০১৭ অনুযায়ী অভিযোগ দায়েরকৃত করা হয়েছিল।দুর্নীতি দমন কমিশন অভিযোগটি আমলে নিয়ে গত ০৮/১০/২০১৮ খ্রিঃ তারিখ দুর্নীতি দমন কমিশন ০০.০১.০০০০.৫০৩.২৬.৪১৩.১৮-৩১৫৭০ নং স্মারকে প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালকের নিকট তদন্ত পূর্বক প্রতিবেদন চাওয়া হয়।বিভাগীয় উপপরিচালক মহোদয়ের কার্যালয়,প্রাথমিক শিক্ষা, বরিশাল এ গত ২০/০৮/২০১৯ খ্রিঃ তারিখ দায়েরকৃত বিভাগীয় মামলায় অফিস আদেশ স্মারক নং উপপরি/প্রাশি/বরি-১১৩৭(৫) তাং ২৩/০৯/২০১৯ খ্রিঃ মূলে বিভাগীয় মামলায় কারন দর্শানোর লিখিত জবাব,ব্যক্তিগত শুনানীর প্রদত্ত বক্তব্য, তদন্ত প্রতিবেদন এবং প্রাষাংগিক রেকর্ডপত্রাদি পর্যালোচনা করে প্রধান শিক্ষক শিউলী আক্তার পপির বিরুদ্ধে আনীত অভিযোগ ও অন্যান্য বিষয়াদি পর্যালোচনায় সন্দাহাতীত ভাবে প্রমানীত হওয়ায় তার বিরুদ্ধে সরকারী কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপীল বিধিমালা)২০১৮ এর বিধি ৪(২)(খ) মোতাবেক তার বেতনের ১টি বার্ষিক বর্ধিত বেতন( পরবর্তী ধাপের ১টি বেতন বৃদ্ধি) ২০২০ সালের ইনক্রিমেন্ট ৩ বছরের জন্য স্থগিত করা হয়।বিভাগীয় উপপরিচালক মহোদয়ের কার্যালয়,প্রাথমিক শিক্ষা, বরিশাল এ গত ২০/০৮/২০১৯ খ্রিঃ তারিখ দায়েরকৃত বিভাগীয় মামলার অফিস আদেশ স্মারক নং উপপরি/প্রাশি/বরি-১১৩৭(৫) তাং ২৩/০৯/২০১৯ খ্রিঃ এর বরাতে প্রধান শিক্ষক শিউলী আক্তার পপি আত্মসাৎকৃত অর্থ ৩৬০০ টাকা সোনালী ব্যাংক কোর্ট বিল্ডিং,বরগুনা শাখার চালান নং ৮৬ তাং ০৫/১১/২০১৯ খ্রিঃ এর মাধ্যমে ১২৪০১০০০১২৬৮১ কোডে সরকারী কোষাগারে জমা দিয়েছেন।এতে সরকারী অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ প্রমানীত হওয়া সত্ত্বেও গুরুদণ্ডের অপরাধে লঘুদণ্ড প্রদান করায় পূনবিচারের জন্য পূূনরায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে।আরও অনুসন্ধান চলছে।বিস্তারিত জানতে চোখ রাখুন ডিটেকটিভ নিউজে।

Comments

comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Comments are closed.

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক ও প্রকাশক : ডাঃ আওরঙ্গজেব কামাল
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : ইজ্ঞি: মোঃ হোসেন ভূইয়া।
বার্তা সম্পাদক : জহিরুল ইসলাম লিটন
যুগ্ন-সম্পাদক : শামীম আহম্মেদ

ঢাকা অফিস : জীবন বীমা টাওয়ার,১০ দিলকুশা বানিজ্যিক (১০ তলা) এলাকা,ঢাকা-১০০০
মোবাইলঃ ০১৭১৬-১৮৪৪১১,০১৯৪৪২৩৮৭৩৮

E-mail:dnanewsbd@gmail.com

ওয়েবসাইট নির্মানে: আইটি হাউজ বাংলাদেশ