কেজরিওয়ালের বিজয় মিছিলে গুলি, নিহত ১

ডেস্ক রিপোর্ট : দিল্লির বিধানসভা নির্বাচনে হ্যাট্রিক বিজয় নিশ্চিত হওয়ার পর পরই হামলার শিকার হলো বিজয়ী প্রার্থী অরবিন্দ কেজরিওয়ালের দল আম আদমি পার্টি (এএপি)। বিধানসভা নির্বাচনে বিজয় উদযাপনের সময় দলটির সমর্থকদের খোলা গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়েছে। এ ঘটনায় এএপি’র এক কর্মী নিহত হয়েছেন।মঙ্গলবার স্থানীয় সময় রাতে দক্ষিণ দিল্লির কিষানগড় গ্রামে এ হামলার ঘটনা ঘটে। এএপি’র মেহরাউলির বিধায়ক নরেশ যাদব বিধানসভা নির্বাচনে জয়লাভের পর কর্মী–সমর্থকদের নিয়ে মন্দির থেকে ফেরার পথে তাঁর গাড়ি লক্ষ্য করে গুলি ছোড়া হয়। গুলিতে আরেক কর্মী আহত হয়েছেন। তবে বিধায়ক নরেশ যাদব অক্ষত রয়েছেন।
খবর ডয়চে ভেলে এএপি’র কর্মীরা জানান, চারজন দুষ্কৃতি ওই জিপ লক্ষ্য করে গুলি চালায়। মোট চার রাউন্ড গুলি ছোঁড়া হয়। বিধায়কের ঠিক পিছনেই ছিলেন এএপি’র কর্মী অশোক মান। তিনিও হাত তুলে জয়ের চিহ্ন ‘ভি’ দেখাচ্ছিলেন। গুলি লাগার পর তিনি ঘটনাস্থলেই প্রাণ হারান। তার ভাগ্নে হরিন্দর গুলিতে আহত হয়েছেন।আগামী রোববার দিল্লির রামলীলা ময়দানে শপথ নেবেন অরবিন্দ কেজরিওয়াল। লেফট্যানান্ট গভর্নর অনিল বৈজলের সঙ্গে দেখা করে কেজরিওয়াল জানিয়ে দিয়েছেন, তিনি গতবারের মতো রামলীলাতেই দলের কর্মী, সমর্থকদের সামনে শপথ নেবেন। তবে সেই শপথগ্রহণ অনুষ্ঠানের আগে দুষ্কৃতির গুলিতে এক কর্মীর মৃত্যু আপ শিবিরে শোকের ছায়া ফেলেছে।পুলিশ জানিয়েছে, তারা একজন দুষ্কৃতিকে ধরতে পেরেছে। জেরার মুখে সেই দুষ্কৃতি জানিয়েছে, তারা বিধায়ককে লক্ষ্য করে গুলি চালায়নি। তারা অশোক মান ও তার ভাগ্নে হরিন্দরকে মারতে চেয়েছিল। কিন্তু এএপি আভিযোগ করেছে, তাদের বিধায়ককে লক্ষ্য করেই আক্রমণ চালানো হয়েছিল। তাতে দলের স্বেচ্ছাসেবক মারা গিয়েছেন।
বিধায়ক নরেশ যাদব জানিয়েছেন, তিনি গুলির শব্দ শুনে প্রথমে ভেবেছিলেন পটকার আওয়াজ। কিন্তু পরে দেখেন তার গাড়ি লক্ষ্য করেই গুলি চালানো হয়েছে। তিনি তাড়াতাড়ি অন্য গাড়িতে ওঠেন। তারপর দেখেন তার সহকর্মী অশোক মানের গায়ে গুলি লেগেছে।বিধায়কের দাবি, ‘গাড়িতে যারা ছিলেন, তাদের যে কেউ মারা যেতে পারতেন। মোট চার রাউন্ড গুলি চালানো হয়। কেন ওই গুলি চলানো হল, তা পুলিশ বলতে পারবে।’
তিনি আততায়ীদের শনাক্ত করতে পুলিশের পূর্ণ তদন্তের দাবি জানিয়েছেন।এএপি’র রাজ্যসভা সাংসদ সঞ্জয় সিং-এর মতে, ‘এই ঘটনাই দেখিয়ে দিচ্ছে, দিল্লির আইন ও শৃঙ্খলা পরিস্থিতি কতটা খারাপ। কয়েক দিন আগে গার্গি কলেজের ভিতরে ছাত্রীদের যৌন হেনস্থা করেছে বহিরাগতরা। পুলিশ ও দাঙ্গা বিরোধী পুলিশ বাইরে মোতায়েন থাকা সত্ত্বেও এই ভয়ঙ্কর ঘটনা ঘটেছে। জেএনইউ-এর ভিতরে ঢুকে ছাত্র-ছাত্রীদের মারা হয়েছে। যারা মেরেছে, তাদের একজনকেও গ্রেফতার করা হয়নি। শাহিনবাগে গিয়ে গুলি চালানো হয়েছে। জামিয়ার গেটে গুলি চলেছে।’প্রবীণ সাংবাদিক গুলশন ডয়চে ভেলেকে জানিয়েছেন, ‘পুলিশের সক্রিয়তা নিয়ে প্রশ্ন উঠতে শুরু করেছে। আগে কোনও ঘটনা ঘটলে পুলিশ সঙ্গে সঙ্গে ব্যবস্থা নিত। ক্রমশ সেই জায়গা থেকে তারা সরে আসছে মনে হচ্ছে।’আরেক প্রবীণ সাংবাদিক শরদ গুপ্তার মতে, ‘ওপরতলা থেকে চাপ এলে তবে পুলিশ সক্রিয় হচ্ছে। দিল্লির পুলিশের এই প্রবণতা চিন্তার কারণ হয়ে উঠছে।’দিল্লিতে আইন ও শৃঙ্খলা রক্ষার দায়িত্ব কেন্দ্রীয় সরকারের। শীলা দীক্ষিত এবং কেজরিওয়াল অতীতে বারবার দাবি করেছেন, রাজ্যর হাতে এই অধিকার দেয়া হোক। কিন্তু তাঁদের দাবিপূরণ হয়নি।অরবিন্দ কেজরিওয়ালের এএপি তৃতীয়বারের মতো দিল্লির ক্ষমতায় এসেছে। গত ৮ ফেব্রুয়ারি অনুষ্ঠিত নির্বাচনের ফল ঘোষণা করা হয় গতকাল। দলটি ৬২টি আসনে জিতেছে। আর বিজেপি জিতেছে ৮টি আসনে। নরেশ যাদব মেহরাউলি আসনে বিজেপির কুসুম খাত্রিকে ১৮ হাজার ১৬১ ভোটের ব্যবধানে পরাজিত করেছেন।

Comments

comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Comments are closed.

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক ও প্রকাশক : ডাঃ আওরঙ্গজেব কামাল
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : ইজ্ঞি: মোঃ হোসেন ভূইয়া।
বার্তা সম্পাদক : জহিরুল ইসলাম লিটন
যুগ্ন-সম্পাদক : শামীম আহম্মেদ

ঢাকা অফিস : জীবন বীমা টাওয়ার,১০ দিলকুশা বানিজ্যিক (১০ তলা) এলাকা,ঢাকা-১০০০
মোবাইলঃ ০১৭১৬-১৮৪৪১১,০১৯৪৪২৩৮৭৩৮

E-mail:dnanewsbd@gmail.com

ওয়েবসাইট নির্মানে: আইটি হাউজ বাংলাদেশ