জলঢাকার হাটবাজার গুলোতে নেই কোন গণশৌচাগার। যততত্র ফেলা হয় ময়লা আবর্জনা

হাসানুজ্জামান সিদ্দিকী হাসান, জলঢাকা,নীলফামারী প্রতিনিধি : নীলফামারীর জলঢাকা উপজেলা ও পৌর শহরের হাটবাজার গুলোতে নেই কোন গণশৌচাগার এবং যততত্র ফেলা হয় ময়লা আবর্জনা। আর এসব ময়লা আবর্জনা পরিস্কার  না করার ফলে দুষিত হচ্ছে পরিবেশ। উপজেলা ও পৌর শহরে ৩০ টির ও বেশী ছোট বড় হাটবাজার আছে। এ সবাই হাট বাজার ইজারা দিয়ে বছরে প্রায় ২ কোটি টাকার মতো রাজস্ব আয় হয় সরকারের।  এলাকাবাসী জানান রাজস্বের টাকা বাজার উন্নয়নে   ব্যায় করার কথা থাকলেও তা হয় না। উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজার ঘুরে দেখা গেছে হাট বাজার গুলোতে পানি নিস্কাশনের জন্য ড্রেন এবং ময়লা আবর্জনা ফেলার জন্য নিদ্দষ্ট কোন স্থান না থাকায় যেখানে সেখানে ফেলা হয় ময়লা আবর্জনা। আর এসব ময়লা আবর্জনা পরিস্কার না করার ফলে দুষিত হচ্ছে পরিবেশ। এবং নেই কোন গণশৌচাগার। যায় আছে সেগুলো বন্ধ ও ব্যাবহার অনুপযোগী। এসব কারনে হাট বাজারে আসা মানুষকে সমস্যায় পড়তে হয়। পৌরসভার ৬ নং ওয়ার্ডের কদমতলীর বাসিন্দা কাদের (৪৫) জানান পৌর শহরের ট্রাফিক মোড় বঙ্গবন্ধু চত্বরের কৈমারী সড়কের কসাইখানার সামনে ,  জিরো পয়েন্ট মহিলা মার্কেটে,ও বাসটার্মিনালে  একটি করে তিনটি  গনশৌচাগার থাকলেও  সেগুলো ব্যাবহার অনুপযোগী। এবং কসাইখানার পাশে সহ যেখানে সেখানে  ময়লা আবর্জনা ফেলার কারনে সেখান থেকে দুর্গন্ধ বের হয়।  এ-ই দুর্গন্ধের কারনে চলাচল করতে অসুবিধা হয়।  কৈমারী সড়কের ব্যাবসায়ী তাইজুল বলেন হাটবাজার  গুলোতে গণশৌচাগার ও ময়লা আবর্জনা ফেলার জন্য নিদ্দষ্ট স্থান করে দেওয়ার ও নিয়মিত পরিস্কার করার দাবী জানান। ও জলঢাকাকে পরিস্কার শহর করার আহবান জানান।  এ বিষয়ে সাবেক পৌর মেয়র ইলিয়াস হোসেন বাবলু জানান আমার সময়ে পৌর সভার জনবল ও শহর পরিস্কারক কম  থাকার পরেও  ময়লা আবর্জনা সবসময়  পরিস্কার রেখেছিলাম ও পানি নিষ্কাশনের জন্য কোটি টাকা ব্যয় করে ড্রেন নির্মান করেছিলামসেই ড্রেন এখন কোথায় পরিস্কার না করার ফলে তার এখন নিঃশ্চিন্ন    এবং  শহরের পিলারগুলোতে  লাইট লাগিয়ে রাতে  আলোকিত করেছিলাম ও গণশৌচাগার করছিলাম একটি। আগামীতে চেষ্টা করবো পরিচ্ছন্ন শহর গড়ার।    বর্তমান মেয়র ফাহমিদ ফয়সাল কমেট চৌধুরীর সাথে মুঠোফোনে একাধিকবার যোগাযোগ করে পাওয়া যায় নি।  বর্তমান পৌর কাউন্সিলর রহমত, হোলাই,মহসিন বিশ্বনাথ,সনজিত, জিয়ারা জানান পৌর সভার নিজস্ব কার্যালয় ও  জনবল সংকট ও  অর্থ বরাদ্ধ না থাকায় ময়লা আবর্জনা পরিস্কার করতে  আমাদের হিমসিম খেতে হচ্ছে।  তার পরেও চেস্টা করছি।একই অবস্থা ইউনিয়নগুলোর    বাজার গুুলোতে চেয়ারম্যানরাও একই কথা বলেন।                                                                                                 

Comments

comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Comments are closed.

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক ও প্রকাশক : ডাঃ আওরঙ্গজেব কামাল
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : ইজ্ঞি: মোঃ হোসেন ভূইয়া।
বার্তা সম্পাদক : জহিরুল ইসলাম লিটন
যুগ্ন-সম্পাদক : শামীম আহম্মেদ

ঢাকা অফিস : জীবন বীমা টাওয়ার,১০ দিলকুশা বানিজ্যিক (১০ তলা) এলাকা,ঢাকা-১০০০
মোবাইলঃ ০১৭১৬-১৮৪৪১১,০১৯৪৪২৩৮৭৩৮

E-mail:dnanewsbd@gmail.com

ওয়েবসাইট নির্মানে: আইটি হাউজ বাংলাদেশ