সালথায় কুমার নদী থেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন

বুলবুল, সালথা (ফরিদপুর) সংবাদদাতা : ফরিদপুরের সালথা উপজেলার গট্টি ইউনিয়নের বড়দিয়া,কাঁঠালবাড়িয়া গ্রাম ও মোড়হাট,রঘুয়ারকান্দি,দিয়াপাড়া গ্রামের মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া কুমার নদী থেকে অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করছে কিছু অসাধু বালু ব্যবসায়ী। নদীর দুই পাশ দিয়ে রয়েছে পাকা দুটি সড়ক, মাঝে কুমার নদী। গভীরতার দিক দিয়ে রাস্তা নদীটির অবস্থান কম নয়। রাস্তা থেকে নদীর গভীরতা অনেক। তারই মাঝ খানে বসানো হয়েছে অবৈধ ড্রেজার মেশিন। চলছে বালু উত্তোলনরে মহোৎসব। কিছু অসাধূ বালু খেকোরা বেপরোয়া, কোন কিছুতেই বাঁধা মানছে না বালু উত্তোলনকারীরা। রাতদিন চলছে ওই ড্রেজার মেশিনের বালু উত্তোলন। ফলে বৃহত্তর দুটি সড়ক রয়ে যাচ্ছে ঝুঁকিতে, যে কোন সময় রাস্তা ভেঙ্গে ঘটতে পারে ঘটতে পারে বড় ধরনের দূর্ঘটনা। গতকাল শনিবার (২৫ জানুয়ারী) সরোজমিনে গিয়ে দেখা যায়, নদীতে রঘুয়ারকান্দি গ্রামের অংশে মোড়হাট গ্রামের কাসেম খাঁন নামের এক ব্যক্তি গত ১২ দিন যাবৎ বালু উত্তোলন করছে। স্থানীয়রা জানান, কাসেম খাঁনসহ এই নদী থেকে অনেকেই বালু উত্তোলন করে। এ ভাবে বালু উত্তোলন করলে নদীর দুই পাশ দিয়ে বয়ে যাওয়া দুটি পাকা সড়ক যে কোন সময় ধ্বসে পড়তে পারে। ড্রেজার মেশিনের মালিক কাসেম খানের সাথে ফোনে কথা হলে তিনি জানান, কোন এক সচিব সাহেবের বাড়ির রাস্তা তৈরি ও তার বাড়ির পাশের পুকুর ভরাট করছেন তিনি। তিনি ওই সচিব সাবেহের দোহাই দিয়েই ফোন কেটে দেন। অপরদিকে ওই নদীর রসুলপুর অংশে বড় ধরনের আরও একটি ড্রেজার মেশিন বসিয়ে চলছে বালু উত্তোলন। জানাযায়, কাঠালবাড়িয়া গ্রামের লিটন নামের এক ব্যক্তি ড্রেজার মেশিন বসিয়ে চলছে তার বালু উত্তোলনের মহোৎসব। ড্রেজার মালিক লিটনের সাথে সাক্ষাতে কথা হলে তিনি বলেন, সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ট্যাকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের নির্মান কাজের জন্য তিনি বালু উত্তোলন করছেন। এদিকে সৈয়দা সাজেদা চৌধুরী ট্যাকনিক্যাল স্কুল এন্ড কলেজের নির্মান কাজ ফরিদপুরের কোন এক প্রভাবশালী ঠিকাদার বাস্তবায়নের দায়িত্বে আছেন। বালু ভরাটের জন্য আলাদা বরাদ্দ থাকলেও ঠিকাদার অধিক লাভের জন্য অবৈধ ভাবে বালু উত্তোলন করছেন। স্থানীয় কয়েকজনের সাথে কথা বলে জানা যায়, কুমার নদীর এই অংশ থেকে বালু উত্তোলন করা মানে নিজেদের ক্ষতি নিজেরাই করা। যে ভাবে এই নদী থেকে বালু উত্তোলন চলছে তাতে করে দুই পাশে অবস্থিত দুটি পাকা সড়ক হুমকির মুখে। কুমার নদীর এই অংশ থেকে বালু উত্তোলন বন্ধ না করলে বড় ধরনের ক্ষতির সম্ভাবনা থেকে যায় ভবিষ্যতের জন্যে। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার হাসিব সরকার বলেন, খবর পেয়েছি ঘটনাস্থলে গিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Comments

comments

Powered by Facebook Comments

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



Leave a Reply

Your email address will not be published.

সর্বশেষ আপডেট



সর্বাধিক পঠিত



সম্পাদক ও প্রকাশক : ডাঃ আওরঙ্গজেব কামাল
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : ইজ্ঞি: মোঃ হোসেন ভূইয়া।
বার্তা সম্পাদক : জহিরুল ইসলাম লিটন
যুগ্ন-সম্পাদক : শামীম আহম্মেদ

ঢাকা অফিস : জীবন বীমা টাওয়ার,১০ দিলকুশা বানিজ্যিক (১০ তলা) এলাকা,ঢাকা-১০০০
মোবাইলঃ ০১৭১৬-১৮৪৪১১,০১৯৪৪২৩৮৭৩৮

E-mail:dnanewsbd@gmail.com

ওয়েবসাইট নির্মানে: আইটি হাউজ বাংলাদেশ