ক্ষেতলালে টাকার জন্য যুবক খুন রহস্য উদঘাটন ও খুনি গ্রেফতারের নাটকীয় গল্প

প্রকাশিত: ০১-০৯-২০২১, সময়: ১৫:২৬ |
Share This

জয়পুরহাট প্রতিনিধি : জয়পুরহাট ক্ষেতলালে গোলাম মওলা (৩০), পিতা- মোঃ মুনসুর রহমান মন্ডল, গ্রাম-দাঁশড়া মছন্দাইল, থানা-ক্ষেতলাল,জেলা-জয়পুরহাট জনৈক শ্রী পিটুল চন্দ্র, পিতা- শ্রী জগেস চন্দ্র এর ক্ষেতলাল বাজারস্থ দোকান ভাড়া নিয়ে বিগত ০৫ মাস যাবত বিকাশ, ফ্লেক্সি লোড সহ ভ্যারাইটিস মালের ব্যবসা করিয়া আসিতেছিল। গত ২৬/০৮/২০২১ খ্রিঃ তারিখ রাত অনুঃ ২১.০০ ঘটিকা সময় দোকান বন্ধ করিয়া ক্ষেতলাল হইতে নিজেস্ব বাই সাইকেল যোগে ক্ষেতলাল টু দাশড়া গামী পাকা রাস্তা দিয়ে নিজ বাড়ীর উদ্দেশ্যে রওনা হয়। রাত অনুঃ ০২.০০ ঘটিকার সময় ক্ষেতলাল-টু-দাশড়া পাকা রাস্তার বয়রা মৌজাস্থিত মরাগারি পুকুরের পুর্ব পাশের মরাগারি বালকা পাথার ঢেলপির দর্গা) এর রাস্তা সংলগ্ন ধান ক্ষেতের মধ্য হতে গোলম মওলা এর মৃত দেহ উদ্ধার করে ক্ষেতলাল থানা পুলিশ। এই সংক্রান্তে ক্ষেতলাল থানা মামলা নং-২৭, তাং-২৮/০৮/২০২১ খ্রিঃ ধারা-৩০২/৩৪ পেনাল কোড রুজু করা হয়। জনাব মাছুম আহাম্মদ ভূঞা,পুলিশ সুপার, জয়পুরহাট মহোদয়ের দিক নির্দেশনায় জনাব নীরেন্দ্র নাথ মন্ডল, অফিসার ইনচার্জ ক্ষেতলাল থানা, জেলা গোয়েন্দা শাখা (ডিবি) পুলিশের সহযোগিতায় মামলা তদন্তকারী অফিসার জনাব মোঃ শাহ আলম, পুলিশ পরিদর্শক(তদন্ত) ক্ষেতলাল থানা, মামলাটি তদন্তকালে তথ্য প্রযুক্তি ও গোপন সংবাদের ভিত্তিতে অত্র মামলার ঘটনার সহিত জড়িত মর্মে সন্দিগ্ধ আসামী মোঃ মুরশেদুল(২২), পিতা- মোঃ জফের আলী মন্ডল, গ্রাম-বকশিপাড়া, থানা-ক্ষেতলাল, জেলা-জয়পুরহাটকে গ্রেফতার পূর্বক বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করলে সে ২৮-০৮-২০২১ তারিখ নিজেকে জড়িত করিয়া আদালতে স্বীকারোক্তি মূলক জবানবন্দী প্রদান করে। তার জবানবন্দীতে তার মাস্টার মাইন্ড হিসেবে অপর আসামী মোঃ হেলাল (৩২), পিতা- মৃত জাহেম উদ্দিন মন্ডল, গ্রাম-বকশিপাড়া, থানা-ক্ষেতলাল, জেলা-জয়পুরহাট এর নাম উল্লেখ করে। অতঃপর আসামী হেলাল এর নিকট হতে ১টি বাঁশের লাঠি, ১টি ইউ কালেক্টরের লাঠি, ১টি দা এবং ১টি ছুরা উদ্ধার পূর্বক গ্রেফতার করে বিজ্ঞ আদালতে প্রেরণ করলে উক্ত বিষয়ে নিজেকে ঘটনার সহিত জড়িত করে দোষ স্বীকার পূর্বক তার সহযোগী আসামী মুরশেদুলসহ অপর দুই সহযোগীর নাম উল্লেখ করে স্বেচ্ছায় গত ৩১-০৮-২০২১ তারিখ বিজ্ঞ আদালতে ফৌঃ কাঃ আইনের ১৬৪ ধারা মোতাবেক জবানবন্দি প্রদান করে আসামী মুরশেদুল এবং হেলাল ঢাকায় থাকিয়া রিক্সা চালিয়ে জীবিকা নির্বাহ করত করোনা কালীন সময়ে তাদের তেমন আয় রোজগার না থাকায় ঢাকায় তাদের থাকা খাওয়ার অভাব দেখা দেয়। এমতাবস্থায় তারা উভয়ে পরিকল্পনা করে যে এলাকায় গিয়ে যেকোন উপায়ে অর্থ উপার্জন করে আর্থিক ভাবে সচ্ছল হবে। অতপর তারা ঢাকা হতে গত ২৫-০৮-২০২১ তারিখ বিকেলে রওনা দিয়ে গভীর রাতে ক্ষেতলাল থানাধীন তাদের নিজ বাড়িতে পৌঁছায়। গত ২৬-০৮-২০২১ তারিখে তারা একটি পরিকল্পনা করে কিভাবে টাকা উপার্জন করা যায়। তখন তারা পরিকল্পনা করে যে, তাদের প¦ার্শবর্তী গ্রামের গোলাম মওলা ক্ষেতলাল পৌরসভা বাজারের বিকাশ, ফ্লেক্সি লোড সহ ভ্যারাইটিস মালের ব্যবসা করে। সে প্রতিদিন বেচা কেনার টাকা পয়সা নিয়ে রাত্রিতে বাড়ি ফিরে। তাকে ধরলে তার কাছে অনেক টাকা পাওয়া যাবে। সেই পরিকল্পনা মোতাবেক গত ২৬-০৮-২০২১ তারিখ রাত্রি অনুমান ২১.০০ ঘটিকার সময় ক্ষেতলাল-টু-দাশড়া পাকা রাস্তার বয়রা মৌজাস্থিত মরাগারি পুকুরের পুর্ব পাশের (মরাগারি বালকা পাথার ঢেলপির দর্গা) এর পাশে মুরশেদুল এবং হেলাল তাদের অপর সহযোগী সাগর এবং ফারুক সহ ভিকটিম গোলাম মওলার আগমনের জন্য অপেক্ষা করতে থাকে। রাত্রি অনুমান ০৯.১৫ ঘটিকার সময় ভিকটিম উক্ত স্থানে বাই সাইকেল যোগে পৌঁছা মাত্রই তারা ভিকটিমকে পিছন থেকে মাথায় আঘাত করলে সে সাইকেলসহ পাকা রাস্তার পাশে ধান ক্ষেতে পরে গেলে তাকে এলোপাথারী মারপিট করে ভিকটিম গোলাম মওলাকে হত্যা করে। ভিকটিম গোলাম মওলার কাছে থাকা টাকা পয়সা নিয়ে তার মরদেহ পাশের ধান ক্ষেতে ফেলে যায়।

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে