‘নৌকাকে বিজয়ী করেই ঘরে ফিরব’

প্রকাশিত: ০১-০৩-২০১৭, সময়: ০৬:২৬ |
Share This

কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক যুগ্ম আহ্বায়ক ও জেলা আওয়ামী লীগের বর্ষীয়ান নেতা অধ্যক্ষ আফজল খান অ্যাডভোকেটের মেয়ে আঞ্জুম সুলতানা সীমা পেয়েছেন আগামী ৩০ মার্চ অনুষ্ঠিতব্য কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের নৌকার টিকিট। আঞ্জুম সুলতানা সীমা কুমিল্লা পৌরসভার সাবেক ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান, প্যানেল মেয়র ও আদর্শ সদর উপজেলা পরিষদের নির্বাচিত সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান।
গতকাল মঙ্গলবার দুপুর তার কর্মস্থল নগরীর নজরুল এভিনিউস্থ কুমিল্লা মডার্ন স্কুলে মনোনয়ন পাওয়া প্রসঙ্গে বাংলাদেশ মেইলের সঙ্গে সংক্ষিপ্ত সাক্ষাৎকারে কুমিল্লা দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের তীব্র গ্রুপিং কিভাবে নিরসন করবেন- এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে তিনি বলেন, জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা জননেত্রী ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আমার এবং আমার গোটা পরিবারের আওয়ামী লীগের প্রতি অতীত অবদান বিবেচনা করে আমাকে নৌকার মাঝি বানিয়েছেন। আশা করি তিনিই সিদ্ধান্ত নেবেন জেলা আওয়ামী লীগে গ্রুপিং থাকবে কিনা। তবে আমি বিশ্বাস করি, এটা আফজল খান বা আঞ্জুম সুলতানা সীমার নির্বাচন না। এটা নৌকার নির্বাচন। দলীয় নির্বাচন। অপেক্ষা করুন কোনো গ্রুপিং থাকবে না সবাই নৌকার পক্ষে কাজ করবে।
গতবার কুমিল্লা সিটি নির্বাচনে মেয়র পদে নির্বচন করে আপনার বাবা পরাজিত হয়েছেন, এবার আপনি দলীয় প্রার্থী হয়েছেন অনুভূতি জানতে চাইলে আঞ্জুম সুলতানা সীমা বলেন, গতবারের প্রেক্ষাপট আর এবারের পেক্ষাপট এক নয়। গতবার ছিল নির্দলীয় নির্বাচন। আর এবার হচ্ছে দলীয় নির্বাচন। সুতরাং দল আমাকে প্রার্থী করেছে, ভালো লাগছে। তবে বেশি ভালো লাগবে তখন যখন দলকে বিজয়ের মুকুট এনে দিতে পারব।
আপনি এমন কি কাজ করেছেন যাতে জনগণ আপনাকে ভোট দেবে- জানতে চাইলে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা বলেন, আপনারা জানেন, আমি যখন কুমিল্লা পৌরসভার ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান ছিলাম, তখন অনেক জুনিয়র হওয়া সত্ত্বেও পৌরবাসীর কল্যাণে নিবেদিত হয়ে কাজ করেছি। নিজে দুর্নীতি করিনি, অপরকেও দুর্নীতি করতে দেইনি। আমার দরজা ছিল দলমত নির্বিশেষে সবার জন্য খোলা। আশা করি এবার আমি অনেক পরিণত হয়েছি। আল্লাহুর রহমতে যদি নির্বাচিত হই কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনকে একটি আদর্শ সিটি কর্পোরেশন হিসেবে গড়ে তুলব।
আপনার প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপি দলীয় প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কুর সঙ্গে আপনি দীর্ঘদিন পৌরসভায় এবং সিটি কর্পোরেশনে কাজ করেছেন, তার কাজ কর্ম সম্পর্কে মূল্যায়ন করতে বললে তিনি বলেন, এ ব্যাপারে এ মুহূর্তে আমি আপনাকে কোনো কিছু বলতে চাই না। সব কিছু নগরবাসী জানেন এবং বোঝেন। আশা করি সেটি বুঝেই তারা উন্নয়নের প্রতীক নৌকা প্রতীকে ভোট দেবেন।
আসন্ন কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে স্থানীয় না জাতীয় কোনো ইস্যুটি বেশি প্রভাব ফেলবে জানতে চাইলে আঞ্জুম সুলতানা সীমা বলেন, যেহেতু দলীয় নির্বাচন তাই জাতীয় ইস্যুর প্রভাব তো থাকবেই। প্রধানমন্ত্রী সারা বাংলাদেশে যে উন্নয়নের জোয়ার সৃষ্টি করেছেন আশা করি কুমিল্লায় এর প্রভাব ফেলবে।
আপনার বাবার প্রধান রাজনৈতিক প্রতিদ্বন্দ্বী স্থানীয় এমপি হাজী আকম বাহা উদ্দিন বাহার। কুমিল্লা নগরীতে তার রয়েছে বিশাল ভোট ব্যাংক। সোমবার রাতে আপনি দেখা করতে গেলে তিনি বলেছিলেন, তোমার জন্য দোয়া করা ছাড়া আমার আর কিছুই করার নেই এই বক্তব্যটিকে আপনি কিভাবে নিয়েছেন বা এতে চিরবৈরিতার বরফ গলবে কিনা জানতে চাইলে মেয়র পদে আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমা বলেন, বাহার চাচা আমার জন্য দোয়া করেছেন, মাঠেও নামবেন- একটু অপেক্ষা করেন।
আপনার প্রধান নির্বাচনী প্রতিশ্রুতি কী জানতে চাইলে আঞ্জুম সুলতানা সীমা বলেন, এটা আরো কিছুদিন পর জানাব।
বিজয়ের ব্যাপারে কতটুকু আশাবাদী জানতে চাইলে তিনি বলেন, ইনশা-আল্লাহ মানুষ উন্নয়নের পক্ষে রায় দেবে এবং আমি বিজয়ের ব্যাপারে আশাবাদী।

Leave a comment

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে