সেই রিকশাচালকের সন্তানদের লেখাপড়ার দায়িত্ব নিলেন ছাত্রলীগ নেতা রাব্বানী

প্রকাশিত: ২০-০৩-২০১৭, সময়: ২৩:২১ |
Share This

সড়ক দূর্ঘটনায় গুরুতর আহত রিকশাচালক জাহিদের দুই সন্তানের লেখাপড়ার দায়িত্ব নিয়েছেন দূর্ঘটনার সময় থেকে সবসময় পাশে থাকা ছাত্রলীগ নেতা গোলাম রাব্বানী।

২০ আগষ্ট সোমবার সন্ধ্যা সাতটার পরপর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে সড়ক দূর্ঘটনায় গুরুতর আহত হন বগুড়ার জাহিদ। ঘটনাস্থলেই রিকশাচালক জাহিদের একটি পা বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। প্রত্যক্ষদর্শী হিসেবে সেখানে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন বিভাগের প্রাক্তন শিক্ষার্থী ও বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রিয় কিমিটির শিক্ষা ও পাঠচক্র বিষয়ক সম্পাদক গোলাম রাব্বানি।

দূর্ঘটনার পরপরই তিনি তাকে ঢাকা মেডিকেল কলেজে নিয়ে যান। এবং দ্রত চিকিৎসার ব্যবস্থা করেন। দূর্ঘটনায় মারাত্মকভাবে আহত ওই রিকশাচালকের ঢাকায় অাপন বলতে কেউই নেই। অপারেশনের জন্য ৪ ব্যাগ বি+ রক্তের প্রয়োজন হলে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় ওই নেতা খুব দ্রতই রক্ত ম্যানেজ করে ১ ঘন্টার মধ্যেই অপারেশনের ব্যবস্থা করেন। এরপর টানা ৯ ঘন্টার সফল অপারেশন শেষে তাকে আইসিইউতে নিয়ে যওয়া হয়। সবশেষ খবর অনুযায়ী জ্ঞাণ ফিরেছে জাহিদের। কথাও বলেছেন তিনি। সারারাত হসপিটালে জাহিদের সাথেই ছিলেন গোলাম রাব্বানি। সকালে রিকশার মালিকের সাথে দেখা করতে যান এবং সবকিছু খুলে বলেন এরপর ওই রিকশার মালিক চিকিৎসার জন্য ৩০ হাজার টাকা দেন গোলাম রাব্বানীর কাছে। বাকি খরচ নিজের পকেট থেকে দিয়ে অপারেশন থেকে শুরু করে আইসিইউ পর্যন্ত সবকিছুর ব্যবস্থাই করেন এই ছাত্রলীগ নেতা।

তিনি বলেন, ‘মানুষ মানুষের জন্য। জীবন-মৃত্যুর প্রশ্নে প্রতিটি মানুষকেই একে অপরের সহযোগীতায় এগিয়ে আসা উচিৎ। আমি এই দর্শনেই বিশ্বাসী। এমনকি দূর্ঘটনায় আক্রান্ত ব্যক্তি যদি শত্রুও হয় তবু তার পাশে দাঁড়ানো উচিত। কারণ প্রতিটি মানুষের জীবনই মহামূল্যবান। তাই চোখের সামনে কেউ দূর্ঘটনায় আক্রান্ত হলে  তার পাশে দাঁড়ানো আমাদের নৈতিক দায়িত্ব।”

এক বিবৃতিতে বাংলাদেশ ছাত্রলীগের জনপ্রিয় এই ছাত্রনেতা আরও বলেন, ‘আমি ব্যক্তিগতভাবে পা হারানো রিকশাচালক ভাইয়ের দুই সন্তানের লেখাপড়ার দায়িত্ব নিয়েছি। এছাড়া বাংলাদেশ ছাত্রলীগের পক্ষ থেকে তাকে তার এলাকা বগুড়াতে একটি মুদির দোকান  দিয়ে দেবারও ব্যবস্থা করা হচ্ছে। সেই সাথে সমাজের বিত্তবানদের কাছে অনুরোধ মেহনতী এই মানুষটাকে সহযোগীতা করতে সবাই এগিয়ে আসবেন। যাতে তার অভাব অনটনের সংসারে চলতে কোন অসুবিধা না হয়।’

Leave a comment

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে