সমাবর্তন কান্ডের পর ঢাবির ফেসবুক সতর্কতা

প্রকাশিত: ০৫-০৩-২০১৭, সময়: ১৬:২৩ |
Share This

 

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পঞ্চাশতম সমাবর্তনে বঙ্গবন্ধু ও ড. ইউনুসকে নিয়ে ‘গোলমাল’ পাকানোর পর সমালোচনার মুখে পড়ে ঢাবির ফেসবুক পেইজ। ঢাবির উপাচার্যের বিরুদ্ধেও ক্ষোভ প্রকাশ করেন অনেকে। এরপর আজ দুজন এডমিনকে পেইজ পরিচালনার দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দেয়া হয়। সন্ধ্যার পর ঢাবির ভেরিফাইড পেইইজ থেকে পেইজ সংশ্লিষ্ট কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য তুলে ধরে একটি পোস্ট দেয়া হয়। নিচে পোস্টটি হুবহু তুলে ধরা হলোঃ

University of Dhaka ফেইসবুক পেইজ সম্পর্কে কিছু গুরুত্বপূর্ণ তথ্য:

বাংলাদেশের প্রাচীনতম, সর্ববৃহৎ এবং উপমহাদেশের অন্যতম প্রাচীন ঐতিহ্যবাহী উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার প্রতিষ্ঠান ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়। পড়াশোনার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক চর্চা, মানবিক গুণাবলীর বিকাশ সাধন, অসাম্প্রদায়িক মনন গঠন, সামাজিক চিন্তাধারার নীতিগত উন্নয়নসহ আত্মিক বিকাশে পরিষেবক হিসেবে কাজ করে চলেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের প্রসারের ফলস্বরূপ আমরা দেখেছি ২০১৪ সালের শুরুর দিকে University of Dhaka নামে ৪৮ ( আটচল্লিশ) টার বেশী ফেইসবুক পেইজ এবং একটি ভুয়া ভেরিফাইড পেইজ, যেখানে ফ্যান সংখ্যা ছিল প্রায় ৪ (চার) লক্ষ। সেই ভেরিফাইড পেইজ থেকে বিভিন্ন সময়ে ভুল তথ্য প্রচার করা হত, ২য় বার ভর্তি পরীক্ষার সুযোগ দেয়ার স্বপক্ষে এইচএসসি পাশ শিক্ষার্থীদের মতামত নেয়া হত, বর্তমান সরকারের উন্নয়ন কর্মকান্ডের সমালোচনায় লিপ্ত থাকত এবং বিভিন্ন নিষিদ্ধ রাজনৈতিক দলের পক্ষে পোস্ট দিত।

এমতাবস্থায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনলাইন পত্রিকা ডিইউটাইমজের একটি টীম ঐ পেইজ গুলোর বিভিন্ন পোস্টের স্ক্রিণশটসহ মাননীয় উপাচার্যের কাছে তুলে ধরে। মাননীয় উপাচার্য তৎকালীন উপ উপাচার্য (প্রশাসন) এবং বর্তমান গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিভাগের চেয়ারম্যান ও ডিইউটাইমজের মডারেটরকে সাথে নিয়ে জরুরী এক বৈঠকের মাধ্যমে ঐ পেইজগুলো বন্ধের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। বিটিআরসির সহযোগিতায় ভুয়া ভেরিফাইড পেইজটা বন্ধের ব্যবস্থাও গ্রহণ করে। ঐ সময় শিক্ষার্থীরা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম তথা ফেইসবুকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নিজেদের তথ্য প্রকাশের সুযোগ থাকা দরকার উল্লেখ করাতে মাননীয় উপাচার্য ডিইউটাইমজের সাথে সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীদের দায়িত্ব দিয়েছিলেন ফেইসবুক পেইজ খোলার জন্য।

সেই ২০১৪ সালের নভেম্বর মাস থেকে আজ পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী, প্রাক্তন শীক্ষার্থী, শিক্ষক, কর্মকর্তা- কর্মচারীদের জন্য হাজারো সঠিক তথ্য সুবিধা দিয়ে যাচ্ছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফেইসবুক পেইজ থেকে। সময়ের সাথে সাথে বিভিন্ন অনুষ্ঠান লাইভ প্রচারসহ বিশ্ববিদ্যালয় নিয়ে নানা ফিচার, ছবি, ভিডিও এবং তথ্য উপাত্ত তুলে ধরার জন্য এ্যাডমিন সংখ্যা বাড়ানো হয়।

সমাবর্তনের আগের দিন রাতে এই পেইজের একজন এ্যাডমিন বিভ্রান্তিকর একটি ক্যাপশনসহ ভিডিও পোস্ট করে যা পোস্ট করার ব্যাপারে কোন সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়নি। ইতোমধ্যে ঐ পোস্ট সংশোধনসহ অভিযুক্ত দুই এ্যাডমিনকে বহিষ্কার করা হয়েছে। এবং অভিযুক্তের এধরণের বিভ্রান্তি সৃষ্টি করার পেছনে কোন ইন্ধন আছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আমরা সংশ্লিষ্ট শিক্ষার্থীরা এধরণের একটি ভুলের জন্য বিশ্ববিদ্যালয়ের কাছে ক্ষমা প্রার্থনা করছি এই পোস্টের মাধ্যমে। এবং ভবিষ্যতে আরো বেশী সতর্ক থেকে কাজ করার প্রতিশ্রুতি জানাচ্ছি।

উল্লেখ্য, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে সাংবাদিক সমিতি, ডিইউটাইমজ, ডিইউএফএস, ডিইউসিসি, ডিইউডিএস, রোবার স্কাউটসহ নানা ছাত্র সংগঠন পরিচালিত হয় এবং প্রশাসনের পক্ষ থেকে নানা সহযোগিতা পেয়ে থাকে। এমনকি সরকারের কাছ থেকে অর্থায়নও পেয়ে থাকে। University of Dhaka তেমনি একটি শিক্ষার্থীদের দ্বারা পরিচালিত এবং বিশ্ববিদ্যালয় কতৃপক্ষ দ্বারা স্বীকৃত। কিন্তু ছাত্র সংগঠনগুলোর মত এইখানেও বিশ্ববিদ্যালয়ের পক্ষ থেকে কোন বেতনভুক্ত কর্মকর্তা কাজ করে না।

এসব স্বেচ্ছাসেবামূলক কাজে কোন ভুল ত্রুটি হলে কতৃপক্ষ অবশ্যই হস্তক্ষেপ করবেন এবং প্রয়োজনীয় সংশোধনসহ দিকনির্দেশনা দিবেন।কিন্তু সমাবর্তনের আগের রাতের পোস্টকে কেন্দ্র করে বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্মানিত উপাচার্যকে কেন্দ্র করে ফেইসবুকে নানা নোংরা বাক্যালাপ কখনো শোভন নয়। এ পোস্টকে কেন্দ্র করে মাননীয় উপাচার্যসহ বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের বিরুদ্ধে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম এবং এজেন্সির সংবাদসমূহ আসলে উপাচার্যের নেতৃত্বের মাধ্যমে মৌলবাদের বিরুদ্ধে শক্ত অবস্থানের বিপক্ষে ষড়যন্ত্র ছাড়া আর কিছু নয়।বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যম, এজেন্সি ও সচেতন সকল ছাত্র সমাজের প্রতি অনুরোধ শিক্ষার্থীদের এই অনাকাঙ্ক্ষিত ভুলের জন্য ক্ষমা করবেন, অভিযুক্তের পেছনে কোন ভিন্ন ইন্ধন পেলে সুষ্ঠু বিচারের জন্য স্বোচ্চার হবেন।”এর আগে অনাকাঙ্ক্ষিত ভুলের জন্য ক্ষমা চাওয়া হয়।

 

বাংলাদেশ মেইল/সোহেল/ঢাবি

Leave a comment

ফেসবুকে আমরা

সর্বশেষ সংবাদ

উপরে