অনলাইনে ক্যাসিনো সম্রাট সেলিমের বিরুদ্ধে নানা বিধ তথ্য ফাঁস

ডেস্ক রিপোর্ট : নতুন এক অনলাইন ক্যাসিনো সম্রাট সেলিমের অপরাধ ও দূর্নীতির নানা বিধ তথ্য উদ্ধার করেছে র‌্যাব। সোমবার দুপুরে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে থাই এয়ারওয়েজের একটি ফ্লাইট থেকে ক্যাসিনো সেলিমকে নামিয়ে আনার আগে ও পরে তদন্তে নানা চাঞ্চল্যকর তথ্য পেয়েছে র‌্যাব। দেশে অনলাইনে ক্যাসিনো বা জুয়ার কারবার চালানোর জন্য বহুমুখী ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান খুলে বসেন সেলিম প্রধান। ‘এইউ এন্টারটেইনমেন্ট’, ‘এশিয়া ইউনাইটে এন্টারটেইনমেন্ট’ ও স্পা সেন্টারের আড়ালে চলছিল এই কারবার। হাই সোসাইটিতে যা প্রচলিত হয় ‘বিশেষ সেবা’ হিসেবে।জাপান ও থাইল্যান্ডে প্রবাস জীবনে ক্যাসিনো কারবারে জড়ান সেলিম। চারদলীয় জোট সরকারের আমলে দেশে এসে অনৈতিক কারবার শুরু করেন। হাওয়া ভবনের কর্তাদের ‘মূল্যবান উপহার’ ও ‘অনৈতিক মনোরঞ্জন’ দিয়ে চালু করেন কারবার। জুয়া খেলা, ম্যাসাজ পার্লারের নামে অসামাজিক কাজ, মাদক সরবরাহ এবং চাঁদার টাকার ব্যবস্থা করে দিয়ে রাতারাতি ক্ষমতাধর হয়ে ওঠেন সেলিম। সরকার বদল হলেও বন্ধ হয়নি অপকর্ম। তাঁর বিনোদনকেন্দ্রের ‘বিশেষ সেবা’ নেন প্রশাসনের কর্তারা। টি-২১ ও পি-২৪ নামের দুটি অ্যাপসে ২৪ ঘণ্টা অনলাইনের ক্যাসিনো চালাতেন তিনি। কোটি কোটি টাকা তুলে পাচারও করেছেন। বাংলাদেশের একটি ইন্টারনেট গেটওয়েতেই মাসে তাঁর ৯ কোটি টাকা পাচারের তথ্য মিলেছে।
র‌্যাবের একাধিক সূত্র জানায়, ১৯৭৩ সালে ঢাকায় জন্ম নেওয়া সেলিম তাঁর ভাইয়ের সহযোগিতায় জাপানে গিয়ে গাড়ির ব্যবসা শুরু করেন। এরপর জাপান থেকে চলে যান থাইল্যান্ডে। সেখানে গিয়ে শিপ ব্রেকিংয়ের ব্যবসা করেন। সেখানেই তাঁর সঙ্গে পরিচয় হয় ‘মি. দো’ নামে এক উত্তর কোরিয়ার নাগরিকের। দো তাঁকে অনলাইনে গেমিং সাইট খোলার পরামর্শ দেন। এরপর থাইল্যান্ডে ক্যাসিনো কারবার শুরু করেন সেলিম।
গত চারদলীয় জোট সরকারের আমলে দেশেও ব্যবসা খোলেন সেলিম। মোটা অঙ্কের টাকা ও মূল্যবান সামগ্রী উপহার দিয়ে হাওয়া ভবনের ঘনিষ্ঠ হয়ে ওঠেন। বিভিন্ন নৈশ পার্টির জন্য সুন্দরী তরুণীদের সরবরাহ করতেন তিনি। প্রভাবশালীদের পূর্ব ইউরোপীয় নারী সরবরাহের পাশাপাশি তাঁর স্পা সেন্টারেও ‘মনোরঞ্জনের’ ব্যবস্থা করতেন। এভাবে বিশ্বের জুয়ার জগতে বাংলাদেশের সেলিম হয়ে ওঠেন ক্ষমতাধরও। সরকার বদল হলেও প্রশাসনে সম্পর্ক রেখে কারবার চালিয়ে যান।
তিনি এখন ‘প্রধান গ্রুপ’ নামের একটি প্রতিষ্ঠানের চেয়ারম্যান। তাঁর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের মধ্যে রয়েছে জাপান-বাংলাদেশ সিকিউরিটি প্রিন্টিং অ্যান্ড পেপারস লিমিটেড, পি২৪ ল ফার্ম, এইউ এন্টারটেইনমেন্ট, এশিয়া ইউনাইটেড এন্টারটেইনমেন্ট, পি২৪ গেমিং, প্রধান হাউস ও প্রধান ম্যাগাজিন। এর মধ্যে পি২৪ গেমিংয়ের মাধ্যমে তিনি জুয়াড়িদের ক্যাসিনোয় যুক্ত করতেন। যুক্তরাজ্য, কানাডা, ভারত, মেক্সিকো, থাইল্যান্ড, পাকিস্তান, সিঙ্গাপুর, কোরিয়া, চায়না, তাইওয়ান, হংকংসহ বিভিন্ন দেশে এশিয়া ইউনাইটেড এন্টারটেইনমেন্টের ব্যানারে অনুষ্ঠান করেন সেলিম। এর মাধ্যমে অর্থ ও নারীপাচার করে আসছিলেন তিনি। একাধিক সূত্র জানিয়েছে, ক্যাসিনো কারবারের অন্যতম আখড়া হিসেবে পরিচিত ওয়ান্ডারার্স ক্লাবের সহসভাপতি সেলিম প্রধান। সম্প্রতি গ্রেপ্তার হওয়া মোহামেডান ক্লাব ও বিসিবি পরিচালক লোকমান হোসেন ভূঁইয়ার ক্যাশিয়ার হিসেবে পরিচিতি আছে তাঁর। থাইল্যান্ডের রাজধানী ব্যাংককের পাতায়ায় সেলিমের বিলাসবহুল হোটেল, ডিসকো বারসহ কয়েকটি প্রতিষ্ঠান আছে। সেলিমের ১২টি গাড়ি আছে। এর মধ্যে একটিতে তিনি ‘সংসদ সদস্য’ স্টিকার লাগিয়ে ঘুরে বেড়াতেন।থাইল্যান্ড, জাপান, বাংলাদেশ, লন্ডনসহ কয়েকটি দেশে তাঁর এক ডজন বান্ধবী আছে। বাংলাদেশ, রাশিয়া ও জাপানে তাঁর তিনজন স্ত্রী আছে বলেও তথ্য মিলেছে বলে জানায় সূত্র।

Comments

comments

সম্পাদক ও প্রকাশক : ডাঃ আওরঙ্গজেব কামাল
সম্পাদক মন্ডলীর সভাপতি : ইজ্ঞি: মোঃ হোসেন ভূইয়া।
বার্তা সম্পাদক : জহিরুল ইসলাম লিটন
যুগ্ন-সম্পাদক : শামীম আহম্মেদ

ঢাকা অফিস : জীবন বীমা টাওয়ার,১০ দিলকুশা বানিজ্যিক (১০ তলা) এলাকা,ঢাকা-১০০০
মোবাইলঃ ০১৭১৬-১৮৪৪১১,০১৯৪৪২৩৮৭৩৮

E-mail:dnanewsbd@gmail.com

© 2011 Allrights reserved to Daily Detectivenews